Bangla Kobita Archives - Bangla Quotes: Bengali Quotes I Bani-বাণী চিরন্তণী [banglaquote.com]

Archive

Category Archives for "Bangla Kobita"

প্রথম প্রেমের কবিতা

প্রথম প্রেম

দেখেছিলেম যেদিন তোমায় অঝোর আলোর পরশে,

থাকতে আর পারি নি সেদিন একলা চুপটি বসে।

কী সন্দর সেজেছিলে!- যেন মায়া ভরা সেই মুখ,

ওই বদন এই লুকিয়ে আছে আমার সকল সুখ।

চুপি চুপি পায়ে হাঁটছিলাম তোমার আঁচল ধরে,

কি-বা শঙ্কায় উঠলে মেতে, ফুল গুলো গেল পড়ে।

সেই ফুল তো লাগিয়ে ছিলেম তোমার কানের পিঠে,

কেন আমায় ছেড়ে গেলে ওগো, হয়ে গেলে তুমি উধাও?

 

অদেখা সত্য – প্রথম প্রেমের কবিতা 

তবু ও এক অদৃশ্য টান কাছে ডাকতো বারংবার।

আমি ও যেতাম ছুট্টে চলে, সকল কার্য ফেলে,

তুমি ও দেখাতে অবহেলা, দিতে তাড়িয়ে হেসে-খেলে।

আমি তো জানতাম, তুমি যে হবে অন্য কারোর প্রিয়া,

সত্য জেনে ও তোমাকে ই কেন মন চাইতো?- বল হিয়া!

যেদিন তোমায় দেখেছিলেম অন্য কারোর সাথে,

তুমি ও ছিলে হাসি-খুশি, হাত রেখেছিলে তার হাতে।

সত্যি বলছি, সেদিনের পর কষ্ট হয়েছে অনেক,

সেই কষ্ট কে বুঝবে বলো?- তবু বুঝিয়েছি প্রতি জনেক।

তোমার পাশের কলঙ্কিত “আমি” টা না হয় মুছে যাক,

তোমায় প্রণয় অন্যের সাথে- অদেখা সত্য হয়ে ই থাক!

 

বিয়ের কার্ড

সেদিন আমার কাছে এলো এক সোনা রঙা লাল কার্ড,

তারিখ টা ছিল ভয়াবহ, আগস্ট মাসের থার্ড!

বর ছিল বুঝি “জুয়েল রানা”, কনে রূপে ছিলে তুমি,

জুয়েলের সাথে কবে ভাব জমালে?- বলো তো দেখি শুনি!

বিয়ের কার্ড নিয়ে দাঁড়িয়ে আছি, হতবাক হয়ে প্রায়,

 

কবে আমাকে ছেড়ে জুয়েল কে বর বানালে তোমার হায়!

বেলা গড়ায়, দিন পেরোয়, বিয়ের তারিখ ঘনিয়ে আসে,

আমার হৃদয় ক্ষত-বিক্ষত, কেউ ছিল না তখন পাশে।

মাইগ্রেনের ব্যথা নিয়ে বিয়ের কার্ড টা দেখি,

কী সুন্দর নিষ্পাপ ছিলে, আজ করলে তুমি একি!

 

তোমার সাথের মধুর স্মৃতি বিষের মতন ঠেকে,

আমার কলিজায় রয়েছিলে তুমি, প্রতি টা বাঁকে বাঁকে।

আজ সবকিছু দুর্বিষহ, জীবন থমকে গেছে,

তোমার বিয়ে তে অ্যাট্যান্ড করা ছাড়া, আর কী-বা করার আছে?

অবশেষে এলো সেই দিনটি, আগস্ট মাসের থার্ড,

তোমাকে অন্যের বধূ হিসেবে দেখা ছিল খুব হার্ড।

 

কিন্তু কই! বিয়ে তে গেলাম, জুয়েল রানা- সে কই?

আমার দু’জন ই তোমাকে চেয়েছি, তাই পরিচিত ও হই।

আমাকে দেখে ই হেসে দিলে তুমি, কী মায়াময় সেই হাসি,

হাসি দেখলে ই মন টা চায়, আরো বেশি বেশি ভালোবাসি।

 

কিন্তু কী আর করার?- তুমি হবে এখন অন্য কারোর বউ,

তুমি তো জনাব জুয়েল রানার, আমার তো আর নও!

আমায় দাঁড়াতে বলে তুমি, কোথায় যে চলে গেলে?!

আমাকে আবার হেয় করলে, ছেড়ে গেলে মোরে ফেলে।

ফিরে আসলে- হাতে কী যেন এক গোল বাক্স নিয়ে,

অর্ডার করলে- আমায় নাকি সাজতে হবে এইটা দিয়ে।

 

আমি তো হায় ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে দাঁড়িয়ে আছি তখন,

বক্সে ছিল- ধুতি, পাঞ্জাবি- খুলে দেখালে তুমি যখন।

আমার বললে- “বুদ্ধু তুমি, কিচ্ছু বোঝো না যে!

আমার বর তো তুমি ই ওগো, জুয়েল রানা ফের কে?”

আমি তো তখন বোকা বনে গেছি, কিচ্ছু বঝি না আর,

তুমি বললে, “প্র্যাঙ্ক ছিল এটা, করো না মুখ আর ভার।”

 

আমি বললাম, “এসব তবে কী সাজানো নাটক ছিল?”

তুমি বললে, “হ্যাঁ, গো মশাই, সাজানো নাটক ই ছিল।”

হাফ ছেড়ে বেঁচে আমি বললুম- “এসব করো না কভু আর।”

তুমি মিষ্টি স্বরে বললে, “না না, আরো করবো বার বার।”

তুমি ই আমার প্রথম প্রেম, তুমি ই আমার শেষ,

তোমার সাথে ই প্র্যাঙ্ক করবো, ভালো ই আছি বেশ।

প্রকৃতি নিয়ে কবিতা

প্রকৃতির ডাক

প্রকৃতি হাতছানি দিয়ে ডাকে
হারাতে ইচ্ছে হয় পাহাড়ি নদীর বাঁকে,
দুর্গম পথ পেরিয়ে পাহাড় জয়ের নেশা
প্রকৃতির একান্ত সান্নিধ্যে নিজেকে ভালোবাসা।

বর্ষায় প্রপাতের সৌন্দর্য দেখার বড় স্বাদ
জুম ঘরে বসে বৃষ্টি দেখার আহ্লাদ,
পিচ্ছিল পাথুরে পথে দুঃসাহসিক অভিযান
দুর্গম বন পেরেবো হাতে নিয়ে প্রান।

পশু পাখির কলোরবে মুখরিত চারিধার
এখানে ফিরতে মন চায় বারংবার,
ক্লান্তি শেষে ঝিরির ঠান্ডা জল পান
একমুঠো জুৃম ভাতে দেহ ফিরে পায় প্রান।

চূড়োয় বসে নক্ষত্ররাজির মাঝে দিবো ডুব
এমন জোসনা রাত্রির সান্নিধ্য চাই খুব,
প্রকৃতি দেবী তোমার কোলে দিও ঠাই
তোমাকে জানার আশায় অজানাতে হারাই।

 

প্রেমের সন্ধি

যদি শুষ্ক ভূমি হতে তুমি,
বৃষ্টি হয়ে তোমায় ভেজাতাম আমি।
আকাশের বিশালতা মাখতে যদি গায়ে,
সাগর হয়ে ছুয়ে দিতাম গুটিগুটি পায়ে।

সূর্যের মতো তেজে দীপ্ত যখন হবে
তোমার তেজস্বীতা আমায় পোড়াবে,
অমাবস্যায় যখন ছেয়ে যাবে মন
চাঁদের হাসি এনে দেব; অভিমান বারণ।

শিমুল হয়ে ঝরতে রাজি যদি তুও চাও
কাঠগোলাপ ভেবে আমায় ছুয়ে দাও,
তৃষ্ণা মেটাতে তোমার হতে পারি ঝর্না
তোমার মেটাতে স্বাদ হবো অন্নপূর্ণা।

হরিৎ বনে চলো গড়বো কুড়ে-
শান্তির ঠিকানা, হারাবো নীড়ে;
প্রকৃতি প্রেমের মতো ভালোবাসো আমায়
তৃষ্ণার্ত এই বুকে আগলাবো তোমায়।

আধুনিক প্রেমের কবিতা

তোমার মোহে

 

নীল শাড়িতে সাজবে রূপা, হলুদ হিমু আমি
আনবো কিনে রেশমী চুড়ি হয়ে তোমার প্রেমী,
হুডফেলা রিকশা চড়ে ঘুরবো দুজন খুব
এলোচুলের মোহতে পড়ে তোমাতে দেবো ডুব।

নিজের হাতে পড়িয়ে দেবো পায়েল তোমার পায়ে
কাশফুলেরা কাটবে বিলি তোমার কোমল গায়ে,
বৃষ্টি এলে ভিজবো দুজন, পড়বো তোমার মোহে
চিরকুটের আদান-প্রদান নিত্যনতুন বইয়ে!

টং এর চায়ে উষ্ণ হবো, দৃষ্টিতে হাতছানি
ছয় তারেতে উঠবে সুর, তোমায় ঠিকই জানি,
চোখের পাতায় ভিড় করেছে, স্বপ্ন আরও কতো-
তোমার মোহে বন্দি আমি, তোমার খুশির ব্রত।

কৃষ্ণ-রাধার প্রেমের মতো

তোমার চোখে আমায় দেখি, স্বপ্নসুরা পান
হাতের সাথে হাত ছুয়েছে, সঙ্গীতেরই তান;
কুঞ্জবনের রাসলীলাতে যেন কৃষ্ণ-রাধা
যমুনাতে ভেসে যাবে পথের যতো বাধা।

 

পূর্নিমাতে চন্দ্রবিলাস – সবার অজান্তে
প্রেমের ভেলায় খুনসুটিতে মাতবো একান্তে,
বৃষ্টিবিলাস-সূর্যস্নান বাদ যাবে না কিছু
মাতাল হাওয়ার মতো আমি ছুটবো তোমার পিছু।

রংধনুর সাত রঙেতে রাঙাবো তোমায়
অহর্নিশি থাকবে তুমি মোর ভাবনায়,
দেবদাসের পারো কিংবা হিমু-রূপা নয়
রাধিকার কাহ্নাই হয়ে বিশ্ব করবো জয়।

 

তোমার জন্যে

দূর পাহাড়ে ঘুরতে যাবো প্রিয়া তোমার সাথে
জুম ঘরেতে বসে দুজন দেখবো আকাশ রাতে,
চলার পথে ক্লান্ত হয়ে তাকাবে আমার পানে
এক পলকেই বুঝে নেবো চোখের ভাষার মানে।

 

আকবো আমি চিত্র তোমার মোনালিসার মতো
তোমার পায়ে লুটাবো আমি- প্রেম আছে যতো
তোমার জন্যে শব্দজালের মোহ হবে লেখা
প্রকৃতির সৌন্দর্য সব তোমায় নিয়েই দেখা।

তোমার জন্যে লিখবো গান, অনন্য সব সুর
ভুল করেও তোমায় আমি দেবোনা হতে দূর,
আরতিতে তুমিই দেবী, অঞ্জলিতেও তুমি
তোমার মাঝেই পূর্ণ হবো, অপূর্ন এই আমি।

 

চায়ের কাপে ভালোবাসা

চায়ের কাপে উঠবে ঝড়, তর্ক হবে খুব-
দিনের শেষে শ্রান্তি পেতে তোমার মাঝেই ডুব
রাজনীতির আলাপ কিংবা খেলার মাঠের লড়াই
তোমার মতো প্রেমী পেয়ে করতে পারি বড়াই।

সত্যজিৎ আর হুমায়ুনে যদিও বাধে গোল
দাবার প্রতি চালের সাথে পাল্টে প্রেমের ভোল।
ভিঞ্চি থেকে জয়নুল পর্যন্ত বাদ যাবে না কেউ
হৃদয়েতে চ্যাপলিন বসে- প্রনয়ে শিল্পের ঢেউ।

রুদ্র আর রবি ঠাকুরের বেজায় সদ্ভাব
আমাদের জুটি যেন তাদেরই প্রভাব;
বাচ্চুর “সেই তুমি”, জেমসের “কবিতা”
আমাদের প্রেম ঠিক শরৎ এর পরিনীতা।

ক্ষীরের পুতুল – অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুর

এক রাজার দুই রানী, দুও আর সুও। রাজবাড়িতে সুওরানীর বড়ো আদর, বড়ো যত্ন। সুওরানী সাতমহল বাড়িতে থাকেন। সাতশো দাসী তাঁর সেবা করে, পা ধোয়ায়, আলতা পরায়, চুল বাঁধে। সাত মালঞ্চের সাত সাজি ফুল, সেই ফুলে সুওরানী মালা গাঁথেন। সাত সিন্দুক-ভরা সাত-রাজার-ধন মানিকের গহনা, সেই গহনা অঙ্গে পরেন। সুওরানী রাজার প্রাণ।

আর দুওরানী— বড়োরানী, তাঁর বড়ো অনাদর, বড়ো অযত্ন। রাজা বিষ নয়নে দেখেন। একখানি ঘর দিয়েছেন— ভাঙাচোরা, এক দাসী দিয়েছেন— বোবা-কালা। পরতে দিয়েছেন জীর্ণ শাড়ি, শুতে দিয়েছেন— ছেঁড়া কাঁথা। দুওরানীর ঘরে রাজা একটি দিন আসেন, একবার বসেন, একটি কথা কয়ে উঠে যান।

সুওরানী— ছোটোরানী, তারই ঘরে রাজা বারোমাস থাকেন।

একদিন রাজা রাজমন্ত্রীকে ডেকে বললেন— মন্ত্রী, দেশবিদেশ বেড়াতে যাব, তুমি জাহাজ সাজাও।

রাজার আজ্ঞায় রাজমন্ত্রী জাহাজ সাজাতে গেলেন। সাতখানা জাহাজ সাজাতে সাত মাস গেল। ছ’খানা জাহাজে রাজার চাকরবাকর যাবে, আর সোনার চাঁদোয়া-ঢাকা সোনার জাহাজে রাজা নিজে যাবেন।

মন্ত্রী এসে খবর দিলেন— মহারাজ, জাহাজ প্রস্তুত।

রাজা বললেন— কাল যাব।

মন্ত্রী ঘরে গেলেন।

ছোটোরানী— সুওরানী রাজ-অন্তঃপুরে সোনার পালঙ্কে শুয়েছিলেন, সাত সখী সেবা করছিল, রাজা সেখানে গেলেন। সোনার পালঙ্কে মাথার শিয়রে বসে আদরের ছোটোরানীকে বললেন— রানী, দেশ-বিদেশ বেড়াতে যাব, তোমার জন্য কী আনব?

রানী ননীর হাতে হীরের চুড়ি ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে বললেন— হীরের রঙ বড়ো শাদা, হাত যেন শুধু দেখায়। রক্তের মতে রাঙা আট-আট গাছ মানিকের চুড়ি পাই তো পরি।

রাজা বললেন— আচ্ছা রানী, মানিকের দেশ থেকে মানিকের চুড়ি আনব।

রানী রাঙা পা নাচিয়ে নাচিয়ে, পায়ের নূপুর বাজিয়ে বাজিয়ে বললেন— এ নূপুর ভালো বাজে না। আগুনের বরন নিরেট সোনার দশ গাছা মল পাই তো পরি।

রাজা বললেন— সোনার দেশ থেকে তোমার পায়ের সোনার মল আনব।

রানী গলার গজমতি হার দেখিয়ে বললেন— দেখ রাজা, এ মুক্তো বড়ো ছোটো, শুনেছি কোন দেশে পায়রার ডিমের মতো মুক্তো আছে, তারি একছড়া হার এনো।

রাজা বললেন— সাগরের মাঝে মুক্তোর রাজ্য, সেখান থেকে গলার হার আনব। আর কী আনব রানী?

তখন আদরিনী সুওরানী সোনার অঙ্গে সোনার আঁচল টেনে বললেন— মা গো, শাড়ি নয় তো বোঝা! আকাশের মতো নীল, বাতাসের মতো ফুরফুরে, জলের মতো চিকন শাড়ি পাই তো পরে বাঁচি।

রাজা বললেন— আহা, আহা, তাই তো রানী, সোনার আঁচলে সোনার অঙ্গে ছড় লেগেছে, ননীর দেহে ব্যথা বেজেছে। রানী, হাসিমুখে বিদায় দাও, আকাশের মতো নীল, বাতাসের মতো ফুরফুরে, জলের মতো চিকন শাড়ি আনিগে।

ছোটোরানী হাসিমুখে রাজাকে বিদায় করলেন।

রাজা বিদায় হয়ে জাহাজে চড়বেন— মনে পড়ল দুখিনী বড়োরানীকে।

দুওরানী— বড়োরানী, ভাঙা ঘরে ছেঁড়া কাঁথায় শুয়ে কাঁদছেন, রাজা সেখানে এলেন।

ভাঙা ঘরের ভাঙা দুয়ারে দাঁড়িয়ে বললেন— বড়োরানী, আমি বিদেশ যাব। ছোটোরানীর জন্যে হাতের বালা, গলার মালা, পায়ের মল, পরনের শাড়ি আনব। তোমার জন্যে কী আনব? বলে দাও যদি কিছু সাধ থাকে।

রানী বললেন— মহারাজ, ভালোয় ভালোয় তুমি ঘরে এলেই আমার সকল সাধ পূর্ণ হয়। তুমি যখন আমার ছিলে তখন আমার সোহাগও অনেক ছিল, সাধও অনেক ছিল। সোনার শাড়ি অঙ্গে পরে সাতমহল বাড়িতে হাজার হাজার আলো জ্বালিয়ে সাতশো সখীর মাঝে রানী হয়ে বসবার সাধ ছিল, সোনার পিঞ্জরে শুক-শারীর পায়ে সোনার নূপুর পরিয়ে দেবার সাধ ছিল। মহারাজ, অনেক সাধ ছিল, অনেক সাধ মিটেছে। এখন আর সোনার গহনায় সোনার শাড়িতে কী কাজ? মহারাজ, আমি কার সোহাগে হীরের বালা হাতে পরব? মোতির মালা গলায় দেব? মানিকের সিঁথি মাথায় বাঁধব? মহাবাজ, সেদিন কি আর আছে! তুমি সোনার গহনা দেবে, সে সোহাগ তো ফিরে দেবে না! আমার সে সাতশো দাসী সাতমহল বাড়ি তো ফিরে দেবে না! বনের পাখি এনে দেবে, কিন্তু, মহারাজ, সোনার খাঁচা তো দেবে না! ভাঙা ঘরে সোনার গহনা চোর-ডাকাতে লুটে নেবে, ভাঙা খাঁচায় বনের পাখি কেন ধরা দেবে? মহারাজ, তুমি যাও, যাকে সোহাগ দিয়েছ তার সাধ মেটাও গে, ছাই সাধে আমার কাজ নেই।

 

রাজা বললেন— না রানী, তা হবে না, লোকে শুনলে নিন্দে করবে। বল তোমার কী সাধ?

রানী বললেন— কোন লাজে গহনার কথা মুখে আনব? মহারাজ, আমার জন্যে পোড়ারমুখ একটা বাঁদর এনো।

রাজা বললেন— আচ্ছা রানী, বিদায় দাও।

তখন বড়োরানী— দুওরানী ছেঁড়া কাঁথায় লুটিয়ে পড়ে কাঁদতে কাঁদতে রাজাকে বিদায় দিলেন। রাজা গিয়ে জাহাজে চড়লেন।

সন্ধ্যাবেলা সোনার জাহাজ সোনার পাল মেলে অগাধ সাগরের নীল জল কেটে সোনার মেঘের মতো পশ্চিম মুখে ভেসে গেল।

ভাঙা ঘরে দুওরানী নীল সাগরের পারে চেয়ে, ছেঁড়া কাঁথায় পড়ে রইলেন। আর আদরিনী সুওরানী সাতমহল অন্তঃপুরে, সাতশো সখীর মাঝে, গহনার কথা ভাবতে ভাবতে, সোনার পিঞ্জরে সোনার পাখির গান শুনতে শুনতে, সোনার পালঙ্কে ঘুমিয়ে পড়লেন।

রাজাও জাহাজে চড়ে দুঃখিনী বড়োরানীকে ভুলে গেলেন। বিদায়ের দিনে ছোটোরানীর সেই হাসিহাসি মুখ মনে পড়ে আর ভাবেন— এখন রানী কী করছেন? বোধ হয় চুল বাঁধছেন। এবার রানী কী করছেন? বুঝি রাঙা পায়ে আলতা পরছেন। এবার রানী সাত মালঞ্চে ফুল তুলছেন, এবার বুঝি সাত মালঞ্চের সাত সাজি ফুলে রানী মালা গাঁথছেন আর আমার কথা ভাবছেন। ভাবতে ভাবতে বুঝি দুই চক্ষে জল এল, মালা আর গাঁথা হল না। সোনার সুতো, ফুলের সাজি পায়ের কাছে পড়ে রইল; বসে বসে সারা রাত কেটে গেল, রানীর চোখে ঘুম এল না।

সুওরানী— ছোটোরানী রাজার আদরিনী, রাজা তারই কথা ভাবেন। আর বড়োরানী রাজার জন্যে পাগল, তার কথা একবার মনেও পড়ে না।

এমনি করে জাহাজে দেশ-বিদেশে রাজার বারো-মাস কেটে গেল।

তেরো মাসে রাজার জাহাজ মানিকের দেশে এল।

মানিকের দেশে সকলই মানিক। ঘরের দেওয়াল মানিক, ঘাটের শান মানিক, পথের কাঁকর মানিক। রাজ সেই মানিকের দেশে সুয়োরানীর চুড়ি গড়ালেন। আট হাজার মানিকের আটগাছি চুড়ি, পরলে মনে হয় গায়ের রক্ত ফুটে পড়ছে।

রাজা সেই মানিকের চুড়ি নিয়ে, সোনার দেশে এলেন। সেই সোনার দেশে স্যাক্‌রার দোকানে নিরেট সোনার দশগাছা মল গড়ালেন। মল জ্বলতে লাগল যেন আগুনের ফিন্‌কি, বাজতে লাগল যেন বীণার ঝংকার— মন্দিরার রিনি-রিনি।

রাজা মানিকের দেশে মানিকের চুড়ি নিয়ে, সোনার দেশে সোনার মল গড়িয়ে, মুক্তোর রাজ্যে এলেন।

সে দেশে রাজার বাগানে দুটি পায়রা। তাদের মুক্তোর পা, মানিকের ঠোঁট, পান্নার গাছে মুক্তোর ফল খেয়ে মুক্তোর ডিম পাড়ে। দেশের রানী সন্ধ্যাবেলা সেই মুক্তোর মালা গাঁথেন, রাতের বেলায় খোঁপায় পরেন, সকাল বেলায় ফেলে দেন।

 

হঠাৎ দেখা – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

রেলগাড়ির কামরায় হঠাৎ দেখা,
ভাবি নি সম্ভব হবে কোনোদিন।

আগে ওকে বারবার দেখেছি
লালরঙের শাড়িতে
দালিম ফুলের মতো রাঙা;
আজ পরেছে কালো রেশমের কাপড়,
আঁচল তুলেছে মাথায়
দোলনচাঁপার মতো চিকনগৌর মুখখানি ঘিরে।
মনে হল, কালো রঙে একটা গভীর দূরত্ব
ঘনিয়ে নিয়েছে নিজের চার দিকে,
যে দূরত্ব সর্ষেখেতের শেষ সীমানায়
শালবনের নীলাঞ্জনে।
থমকে গেল আমার সমস্ত মনটা;
চেনা লোককে দেখলেম অচেনার গাম্ভীর্যে।

হঠাৎ খবরের কাগজ ফেলে দিয়ে
আমাকে করলে নমস্কার।
সমাজবিধির পথ গেল খুলে,
আলাপ করলেম শুরু —
কেমন আছ, কেমন চলছে সংসার
ইত্যাদি।

সে রইল জানলার বাইরের দিকে চেয়ে
যেন কাছের দিনের ছোঁয়াচ-পার-হওয়া চাহনিতে।
দিলে অত্যন্ত ছোটো দুটো-একটা জবাব,
কোনোটা বা দিলেই না।
বুঝিয়ে দিলে হাতের অস্থিরতায় —
কেন এ-সব কথা,
এর চেয়ে অনেক ভালো চুপ করে থাকা।

আমি ছিলেম অন্য বেঞ্চিতে
ওর সাথিদের সঙ্গে।
এক সময়ে আঙুল নেড়ে জানালে কাছে আসতে।
মনে হল কম সাহস নয়;
বসলুম ওর এক-বেঞ্চিতে।
গাড়ির আওয়াজের আড়ালে
বললে মৃদুস্বরে,
“কিছু মনে কোরো না,
সময় কোথা সময় নষ্ট করবার।
আমাকে নামতে হবে পরের স্টেশনেই;
দূরে যাবে তুমি,
দেখা হবে না আর কোনোদিনই।
তাই যে প্রশ্নটার জবাব এতকাল থেমে আছে,
শুনব তোমার মুখে।
সত্য করে বলবে তো?

আমি বললেম, “বলব।”
বাইরের আকাশের দিকে তাকিয়েই শুধোল,
“আমাদের গেছে যে দিন
একেবারেই কি গেছে,
কিছুই কি নেই বাকি।”

একটুকু রইলেম চুপ করে;
তারপর বললেম,
“রাতের সব তারাই আছে
দিনের আলোর গভীরে।”

খটকা লাগল, কী জানি বানিয়ে বললেম না কি।
ও বললে, “থাক্‌, এখন যাও ও দিকে।”
সবাই নেমে গেল পরের স্টেশনে;
আমি চললেম একা।

মিছিল – রুদ্র মুহম্মদ শহিদুল্লাহ

যে যাবে না সে থাকুক, চলো, আমরা এগিয়ে যাই।
যে-সত্য জেনেছি পুড়ে, রক্ত দিয়ে যে-মন্ত্র শিখেছি,
আজ সেই মন্ত্রের সপক্ষে নেবো দীপ্র হাতিয়ার।
শ্লোগানে কাঁপুক বিশ্ব, চলো, আমরা এগিয়ে যাই।

প্রথমে পোড়াই চলো অন্তর্গত ভীরুতার পাপ,
বাড়তি মেদের মতো বিশ্বাসের দ্বিধা ও জড়তা।
সহস্র বর্ষের গ্লানি, পরাধীন স্নায়ুতন্ত্রীগুলো,
যুক্তির আঘাতে চলো মুক্ত করি চেতনার জট।

আমরা এগিয়ে যাবো শ্রেনীহীন পৃথিবীর দিকে,
আমাদের সাথে যাবে সংগ্রামের দীর্ঘ ইতিহাস,
অনার্যের উষ্ণ লহু, সংঘশক্তি, শিল্পে সুনিপুন
কর্মঠ, উদ্যমশীল, বীর্যবান শ্যামল শরীর।

আমাদের সাথে যাবে ক্ষেত্রভূমি, খিলক্ষেত্র, নদী,
কৃষি সভ্যতার স্মৃতি, সুপ্রাচীন মহান গৌরব।
কার্পাশের দুকূল, পত্রোর্ন আর মিহি মসলিন,
আমাদের সাথে যাবে তন্তু-দক্ষ শিল্পীর আঙুল।

 

চলো, আমরা এগিয়ে যাই, আমাদের সাথে যাবে
বায়ান্নর শহীদ মিনার, যাবে গন অভ্যুত্থান,
একাত্তুর অস্ত্র হাতে সুনিপুন গেরিলার মতো।
আমাদের সাথে যাবে ত্রিশ লক্ষ রক্তাক্ত হৃদয়।

মাগো ওরা বলে – আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ

“কুমড়ো ফুলে-ফুলে,
নুয়ে প’ড়েছে লতাটা,
সজনে ডাঁটায়
ভরে গেছে গাছটা,
আর আমি
ডালের বড়ি শুকিয়ে রেখেছি।
খোকা তুই কবে আসবি ?
কবে ছুটি?”

চিঠিটা তার পকেটে ছিল
ছেঁড়া আর রক্তে ভেজা।

“মাগো, ওরা বলে
সবার কথা কেড়ে নেবে।
তোমার কোলে শুয়ে
গল্প শুনতে দেবে না।
বলো, মা,
তাই কি হয়?
তাইতো আমার দেরি হচ্ছে।
তোমার জন্য
কথার ঝুরি নিয়ে
তবেই না বাড়ি ফিরবো।

ল‍হ্মী মা,
রাগ ক’রো না,
মাত্রতো আর ক’টা দিন।”
“পাগল ছেলে,”
মা পরে আর হাসে,
“তোর ওপরে রাগ করতে পারি!”
নারকেলের চিড়ে কোটে,
উরকি ধানের মুড়কি ভাজে,
এটা-সেটা
আরও কত কী!
তার খোকা যে বাড়ি ফিরবে
ক্লান্ত খোকা।

কুমড়ো ফুল
শুকিয়ে গেছে,
ঝরে পরেছে ডাঁটা,
পুঁই লতাটা নেতানো।
“খোকা এলি?”
ঝাপসা চোখে মা তাকায়
উঠানে-উঠানে
যেখানে খোকার শব
শকুনীরা ব্যবচ্ছেদ করে।

এখন
মা’র চোখে চৈত্রের রোদ
পুরিয়ে দেয় শকুনীদের।
তারপর
দাওয়ায় ব’সে
মা আবার ধান ভানে,
বিন্নি ধানের খই ভাজে,
খোকা তার
কখন আসে কখন আসে।

এখন
মার চোখে শিশির-ভোর
স্নেহের রোদে ভিটে ভ’রেছে।

একুশের গান – আবদুল গাফফার চৌধুরী

আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো, একুশে ফেব্রুয়ারি
আমি কি ভুলিতে পারি
ছেলে হারা শত মায়ের অশ্রু-গড়া এ ফেব্রুয়ারি
আমি কি ভুলিতে পারি
আমার সোনার দেশের রক্তে রাঙানো ফেব্রুয়ারি
আমি কি ভুলিতে পারি।।

জাগো নাগিনীরা জাগো নাগিনীরা জাগো কালবোশেখিরা
শিশু-হত্যার বিক্ষোভে আজ কাঁপুক বসুন্ধরা,
দেশের সোনার ছেলে খুন করে রোখে মানুষের দাবী
দিন বদলের ক্রান্তি লগনে তবু তোরা পার পাবি?
না, না, না, না খুন-রাঙা ইতিহাসে শেষ রায় দেওয়া তারই
একুশে ফেব্রুয়ারি, একুশে ফেব্রুয়ারি।।

সেদিনও এমনি নীল গগনের বসনে শীতের শেষে
রাত জাগা চাঁদ চুমো খেয়েছিল হেসে;
পথে পথে ফোটে রজনীগন্ধা অলকনন্দা যেন,
এমন সময় ঝড় এলো এক ঝড় এলো খ্যাপা বুনো।।
সেই আঁধারের পশুদের মুখ চেনা

তাহাদের তরে মায়ের, বোনের, ভায়ের চরম ঘৃণা
ওরা গুলি ছোঁড়ে এদেশের প্রাণে দেশের দাবিকে রোখে
ওদের ঘৃণ্য পদাঘাত এই বাংলার বুকে
ওরা এদেশের নয়,
দেশের ভাগ্য ওরা করে বিক্রয়
ওরা মানুষের অন্ন, বস্ত্র, শান্তি নিয়েছে কাড়ি
একুশে ফেব্রুয়ারি একুশে ফেব্রুয়ারি।।

তুমি আজ জাগো তুমি আজ জাগো একুশে ফেব্রুয়ারি
আজো জালিমের কারাগারে মরে বীর-ছেলে বীর-নারী
আমার শহিদ ভাইয়ের আত্মা ডাকে
জাগো মানুষের সুপ্ত শক্তি হাটে মাঠে ঘাটে বাঁকে
দারুণ ক্রোধের আগুনে আবার জ্বালব ফেব্রুয়ারি
একুশে ফেব্রুয়ারি একুশে ফেব্রুয়ারি।।

কোরানের বাণী – সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত

মধ্যদিনের আলোর দোহাই,
নিশার দোহাই ওরে
প্রভু তোরে ছেড়ে যাননি কখনো,
ঘৃণা না করেন তোরে।
অতীতের চেয়ে নিশ্চয়ই ভালো
হবে রে ভবিষ্যৎ,
একদিন খুশি হবি তুই লভি
তার কৃপা সুমহৎ।
অসহায় যবে আসিলি জগতে
তিনি দিয়াছেন ঠাঁই-
তৃষ্ণা ও ক্ষুধা দুঃখ যা ছিল
ঘুচায়ে দেছেন তাই।
পথ ভুলেছিলি তিনিই সুপথ
দেখায়ে দেছেন তোরে,
সে কৃপার কথা স্মরণে রাখিস;
অসহায় জনে ওরে
দলিস না কভু ভিখারি আতুর
বিমুখ যেন না হয়
তাঁর করুণার বারতা ঘোষণা
করবে দুনিয়াময়।

হাসি নিয়ে কবিতা

🖤🖤 বেশি হাসি 🖤🖤

হাসতে হাসতে অন্ধ,
মুখটা তার বন্ধ,
চোখটা গেলো বুজে,
বেশি হাসে অকাজে।
হাসলেই হাসি, বাড়ে বেশি,
হাসতে নেই মানা,
জীবন যদি থেমেও যায়,
হাসি যাবে না থামা।
তাই তো ভাই, হাসতে হবে,
থাকতে হবে ভালো,
অন্ধকারে একা হলে,
দেখবে তুমি আলো।
দুঃখ গুলো যাবে ঢেকে,
সব হাসির আড়ালে।
দেখবে তুমি আছো ভালো
সব পরিস্থিতি সামলে।

🖤কোথায় পেলে এমন হাসি🖤

কোথায় পেলে এমন হাসি?
যে হাসিতে জোছনা ঝড়ে!
যেই হাসির আলোক বরণ
ঝলমলিয়ে মর্ত্যে পড়ে।

কোথায় পেলে এমন হাসি?
যে হাসিতে জুড়ায় হৃদয়,
যেই হাসির আবরণে
দূর হয়ে যায় সব ডর-ভয়।

এমন হাসি পেলে কোথায়
যে হাসিতে ফাগুন উড়ে,
যেই হাসির সুরের টানে
পাখিরা সব গান করে।

পেলে কোথায় এমন হাসি?
যে হাসিতে বর্ষা আসে,
যেই হাসির ভালোবাসায়
মেঘগুলো সব ভাসে আকাশে।

কোথায় পেলে এমন হাসি?
যে হাসিতে গোলাপ ফুঁটে,
যেই হাসিরই সুবাস পেয়ে
ভ্রমররা সব আকুল ছুটে।

এমন হাসি পাও যদি ভাই
আঁকড়ে রেখো মন মাঝে,
হারিয়ে গেলেই আসবে আঁধার
ঢাকবে হৃদয় কালো সাঁঝে।

🖤তোমার হাসি🖤

তোমার হাসিতে
ধরিত্রী থমকে যায়।
তোমার হাসিতে
পথভোলা পথিক-
পথ খুঁজে পায়।

তোমার হাসিতে
বাগানে ফুল ফুটে।
তোমার হাসিতে
দিগন্তের শেষ্প্রান্তে-
লাল সূর্য উঠে।

তোমার হাসিতে
পাখিরা গান গায়।
তোমার হাসিতে
আকাশের তারাগুলো-
আলোর দেখা পায়।

তোমার হাসিতে
নদীর রেখা বয়।
তোমার হাসিতে
সমুদ্রের তীরঘেষে-
পাহাড়ের জন্ম হয়।

তোমার হাসিতে
পৃথিবীতে শান্তি আসে।
তোমার হাসিতে
বসুন্ধরা জুড়ে-
স্বর্গের সুখ ভাসে।

অমন হাসির জন্য মানুষের
ভালোবাসা রয়ে যায়।
অমন হাসির খোঁজে ধরায়
কবিতারা থেকে যায়।

🖤তুমি হাসতে বলেছিলে🖤

তুমি আমাকে হাসতে বলেছিলে আর
আমি চেয়েছিলাম তুমি আমার হাসির কারণ হও।
তুমি আমাকে ভালো থাকতেও বলেছিলে
আর আমি চেয়েছিলাম,
তুমি আমার ভালো থাকার সঙ্গী হও।
তুমি সুখ খুজেছিলে,
কিন্তু আমায় নিয়ে সুখি হতে চাও নি।
আমি ভালো বেসেছিলাম,
তুমি ভালোবাসার হিসেব কষতে বসেছিলে।
আমি তোমাকে নিয়ে আকাশ হতে চেয়েছিলাম,
তুমি আমাকে মেঘও কল্পনা করো নি।
আমি তোমায় নিয়ে বাঁচতে চেয়েছিলাম
আর তুমি,অন্য কাউকে নিয়ে।
তুমি আমায় হাসতে বলেছিলে,
কিন্তু আমার হাসির কারণ হতে চাও নি।
আফসোস!! আমি ভালো বেসেছিলাম…

1 2 3 10