Ayatul Kursi Bangla -আয়াতুল কুরসি

Ayatul Kursi Bangla -আয়াতুল কুরসি

ayatul kursi banglaকোরআনের মাজীদের শ্রেষ্ঠ আয়াত।আয়াতুল কুরসি  Surah Al-Baqarah verse 255, আল কুরআনের কারীমের  একটি আয়াত, যাহাতে বর্ণিত হয় মহান আল্লাহ্ শ্রেষ্ঠত্ব-মাহাত্ম্য,জ্ঞান,বিদ্যা-মহিমা,

Ayatul Kursi Bangla -আয়াতুল কুরসি

 

আল্লা-হু লা-ইলা-হা ইল্লা-হুওয়া (ج) আল হাইয়ুল । কাইয়ূমু (ج) লা-তা’খুযুহু ছিনাতুওঁ ওয়ালা-নাওমুন (ط) লাহ্ মা-ফিছ ছামা-ওয়াতি ওয়ামা-ফিল আরদি (ط)।

মাং যাল্লাযী ইয়াশফাউ ইংদাহ্ইল্লা-বিইযনিহী (ط) ইয়া’লামু মা-বাইনা আইদীহিম ওয়ামা-খালফাহুম (ج)) ওয়ালাএ ইউহীনা বিশাইইম্ মিন ইলমিহী-ইল্লা-বিমা-শা ~ আ (ج))

ওয়াছি‘আ কুরছিইয়ুহুছ ছামাওয়াতি ওয়াল আরদ। (ج) ওয়ালা-ইয়াউদুহু হিফজুহুমা- (ج) ওয়া হুওয়াল| ‘আলিইয়ুল আজীম।

Ayatul Kurchi Bangla Ortho (অর্থ)

আয়াতুল কুরসী বাংলা অর্থ : আল্লাহ, যিনি ব্যতীত কোন উপাস্য নাই । যিনি চিরঞ্জীব ও বিশ্বচরাচরের ধারক। কোন তন্দ্রা বা নিদ্রা তাঁহাকে পাকড়াও করতে পারেন না।

আসমান ও জমিনে যা কিছু আছে সবকিছু তাঁরই মালিকানাধীন। তাঁর নির্দেশ ব্যতিত এমন কে আছে যে, তাঁর নিকটে সুফারিশ করতে পারে? তাদের সম্মুখে ও পিছনে যা কিছু আছে সবকিছুই তিনি জানে।

তাঁর জ্ঞানের সাগর হতে তারা কিছুই আয়ত্ত করতে পারে না, কেবল যতুটুকু তিনি দিতে ইচ্ছা করেন তা ব্যতিত। তাঁর কেদারা সমগ্র আসমান ও জমিন পরিবেষ্টন করে আছে। আর সেগুলির তত্ত্বাবধান তাঁকে মোটেই শ্রান্ত করে না। তিনি সর্বোচ্চ এবং বৃহত্তম’।

 

Ayatul Kursi Fojilat – আয়াতুল কুরসির ফজিলত

  • হজরত আবু উমামা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, ‘যে ব্যক্তি প্রত্যেক ফরজ নামাজ শেষে করে আয়াতুল কুরসি পরবে , তার জান্নাতে প্রবেশ করতে হলে মৃত্যু ছাড়া আর কোনো বাধা থাকবে নাহ ।
  • রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উবাই বিন কাবকে জিজ্ঞেস করে, তোমার কাছে কুরআন কোন আয়াতটি সর্বশ্রেষ্ঠ? তিনি বলেছিলেন, (আল্লাহু লা ইলাহা ইল্লাহু আল্ হাইয়্যুল কাইয়্যুম) তারপর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নিজ হাত তার বুকে রেখে বলেন, আবুল মুনযির! এই ইলমের কারণে তোমাকে ধন্যবাদ- হজরত উবাই বিন কাব রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত।
  • আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, সুরা বাকারার মধ্যে এমন একটি আয়াত রয়েছে, যে আয়াতটি পুরো কোরআনের নেতাস্বরূপ। তা পড়ে ঘরে প্রবেশ করলে শয়তান বের হয়ে যায়। তা হলো ‘আয়াতুল কুরসি’।
  • হজরত আলী  রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বলতে শুনেছি, ‘যে ব্যক্তি প্রত্যেক ফরজ নামাজের পর আয়াতুল কুরসি নিয়মিত পড়ে, তার জান্নাতে প্রবেশে কেবল মৃত্যুই অন্তরায় থাকে। যে ব্যক্তি এ আয়াতটি শোয়ার আগে পড়বে আল্লাহ তার ঘর, প্রতিবেশীর ঘর এবং আশপাশের সব ঘরে শান্তি বজায় রাখবেন।
Bangla Quote