Archive

Category Archives for "উক্তি"

হলুদ ফুল নিয়ে ক্যাপশন

প্রিয় বন্ধুরা আজকে আমরা আপনাদের জন্য শেয়ার করবো হলুদ ফুল নিয়ে ক্যাপশন ও বানী। আশাকরছি আপনাদের অনেক ভালো লাগবে। আর ভালো লাগলে আপনার শেয়ার করুন আপনার কাছের মানুষের সাথে। আমাদের সাথে থাকার জন্য আন্তরিক ভাবে ধন্যবাদ আপনাকে। চলুন শুরু করি।

 

হলুদ-ফুল-নিয়ে-ক্যাপশন

হলুদ ফুল নিয়ে স্ট্যাটাস

রঙ হিসেবে হলুদ সবার প্রিয় না হলেও হলুদ ফুলের অপরূপ সৌন্দর্য আকৃষ্ট করে হলুদের প্রেমে পড়তে।

 

হলুদ ফুল বন্ধুত্বের প্রতীক।

 

 প্রেম হলুদ ফুলের মত, আর বন্ধুত্ব হল গাছের মত আশ্রয়।

তোমার চোখে হলুদ ফুল, ভিজতে চায় আমার মন।

 

হলুদ ফুলে ফুলে ছেয়ে আছে দিগন্তজোড়া সরষে ক্ষেত, ঠিক যেন পৃথিবী নামক সুবিশাল বটবৃক্ষের ডালে ছোট্ট একটা হলুদ প্রজাপতি।

 

শুকনো ডালে বসন্ত আসে,
হলুদ ফুল ফোটে।
রঙ বাহারি ফুলের মেলায়
ভ্রমর এসে জোটে।

 

 যদি ভালোবাসো, দিও একটি লাল গোলাপ আর যদি চাও আজীবন বন্ধুত্ব, দিও একটি হলুদ ফুল।

 

কালো কালির কালো টান,
হলুদ ফুলের মিষ্টি ঘ্রাণ।

 

বাতাসে হলুদ ফুলের মিষ্টি সুবাস,
চারদিকে শুধু হলুদের জয়জয়কার।

 

 পারছো কি তুমি শুনতে, হলুদ আলোয় এক ঝাঁক সূর্যমুখীর গান?

 

কল্প ডানার স্বপ্ন হয়ে, হলুদ ফুলের ডালে
প্রজাপতি উড়ে বেড়ায়, ছন্দের তালে তালে

 

ফাল্গুনে বিকশিত হলুদ রঙের ফুল,
ডালে ডালে পুষ্পিত হলুদ আম্রকানন।

 

বহু প্রতিক্ষার পর, চলার পথে হঠাৎ দেখা
হাতে একগুচ্ছ স্নিগ্ধ হলুদ ফুল…

 

হলুদ রঙের ফুল যেমন সূর্যের আলো ছাড়া উড়তে পারে না, ঠিক তেমনই বন্ধুত্ব হীন কোন মানুষ বাঁচতে পারে না।

 

অসংখ্য হলুদ ফুল যেমন একটি গাছকে সুশোভিত করে, ঠিক তেমনই বন্ধু বান্ধবের কলরব মানুষের জীবনকে আনন্দময় করে তোলে।

 

 বন্ধু যদি রাগ করে,
বুঝতে পারো ভুল।
রাগ ভাঙ্গাতে তুলে দিও
একটি হলুদ ফুল।

 

 

উপরে আপনাদের জন্য কিছু জনপ্রিয়  হলুদ ফুল নিয়ে ক্যাপশন বাণী শেয়ার করলাম। সামনে অন্য কোনো বিষয়ে উক্তি শেয়ার করবো। সে পর্যন্ত ভালো থাকুন। ধন্যবাদ

পদ্ম ফুল নিয়ে ক্যাপশন

প্রিয় বন্ধুরা আজকে আমরা আপনাদের জন্য শেয়ার করবো পদ্ম ফুল নিয়ে ক্যাপশন ও বানী। আশাকরছি আপনাদের অনেক ভালো লাগবে। আর ভালো লাগলে আপনার শেয়ার করুন আপনার কাছের মানুষের সাথে। আমাদের সাথে থাকার জন্য আন্তরিক ভাবে ধন্যবাদ আপনাকে। চলুন শুরু করি।

পদ্ম ফুল নিয়ে স্ট্যাটাস

“একা ঝিলের জলে শালুক পদ্ম তোলে কে
ভ্রমর – কুন্তলা কিশোরী?
আধেক অঙ্গ জলে, রূপের লহর তোলে
সে ফুল দেখে বেভুল সিনান বিসরি।।”
— কাজী নজরুল ইসলাম

 

 

আজ নীল ফুলের নীল পদ্ম
নীলিমার মায়ায় আবদ্ধ
সবকিছু আজ তাই যেন
নীলের মাঝেই সীমাবদ্ধ।

 

মা, তুমি স্নেহের আঁচল মোড়ানো
নীল পদ্ম ফুল
ক্ষমা করো মমতাময়ী
হয় যদি কভু অজ্ঞাত ভুল!

 

আমার বন্ধু কে
তোমরা কি কেউ জানো?
অরন্যের লতিকা গুল্ম, নাকি নদীতে বয়ে যাওয়া স্রোত?
নাকি পাহাড়ের খন্ড আকৃতির স্তুপ
কিংবা সমুদ্র তলদেশের মৎস্যকন্যারা?
আমি আজ ভেবে ভেবে ক্লান্ত পরিশ্রান্ত,
হতবিহ্বল উদ্ভ্রান্ত।

 

তবে দিঘীরপাড়ের পদ্মফুল আমায় বলেছিল,
তোমার বন্ধু তুমি, শুধুই তুমি।
আরো আছে বই
সুকান্ত নজরুল জীবনানন্দ
আরো আছে রবীন্দ্রনাথ
যাকে পুজিলে জীবন
হবে সার্থক তোমার।
—- আইরিন আঁখি

 

পৃথিবীতে যতই খারাপ থাকুক না কেন, শেষ পর্যন্ত সুন্দরের জয় নিশ্চিত। ঠিক তেমনি, কেউ তোমার কাছে খারাপ বানানোর যতই চেষ্টা করুক না কেন, তোমার মন যদি অবিচল থাকে যে তুমি ভালোই হবে, তাহলে তুমি তাই হবে।
এর অনন্য উদাহরণ হল পদ্ম ফুল। তার চারপাশে কত ময়লা, কাদা জল, দুর্গন্ধ যুক্ত পরিবেশ। অথচ এরই মাঝে জন্ম নেয় মনোহরী সৌন্দর্যের আধার পদ্মফুলটা।

 

সকল সুযোগ-সুবিধা পেলেই যে মানুষ সফল হবে তার কোন নিশ্চয়তা নেই, মাঝে মাঝে সুবিধাবঞ্চিতদের মাঝেও জন্ম নেয় কিছু “গোবরে পদ্মফুল”।

 

 

আমি নাইতে গিয়ে এক পদ্ম দেখেছি
তুলবো বলে তাহার উপর হাত রেখেছি,
যে পদ্ম অঙ্গে ঢেলেছে কতশত নীল
তাই দিয়ে সাজাবো আসমানী মঞ্জিল।

 

 

তারার মেলা লুকিয়ে রেখেছি মন ডগাতে
নিশিতে শুরু রক্ত খেলা শেষ হবে এই প্রভাতে,
স্বার্থকী তুই পদ্ম পানে রণে নেমে আয়
রাঙা দেহে সেজে আছি জলের কিনারায়।

 

পদ্মা লতায় লতায় কাঁটা থাকে বলেই পদ্ম এত মূল্যবান।
পদ্মের পাপড়িগুলো একটি একটি করে ঝরে পরে ঠিকই কিন্তু কাঁটাগুলো হৃদয়ে বৃদ্ধ হয়।

 

এক সময় বর্ষা ও শরৎকালে বাংলাদেশের বিলে ঝিলে ফুটে থাকতো শোভাবর্ধনকারী, মনোহরি পদ্মফুল।
“ওহে পদ্ম ফুল!
ভোরের হাওয়ায় শীতল স্পর্শে দুলছো দোদুল- দুল।”
আজকাল আর সর্বত্র পদ্মফুলের দেখা পাওয়া যায় না।

 

উপরে আপনাদের জন্য কিছু জনপ্রিয়  পদ্ম ফুল নিয়ে ক্যাপশন বাণী শেয়ার করলাম। সামনে অন্য কোনো বিষয়ে উক্তি শেয়ার করবো। সে পর্যন্ত ভালো থাকুন। ধন্যবাদ

সূর্যমুখী ফুল নিয়ে ক্যাপশন

সূর্যমুখী ফুল নিয়ে ক্যাপশন– প্রিয় বন্ধুরা আজকে আমরা আপনাদের জন্য শেয়ার করবো সূর্যমুখী ফুল নিয়ে ক্যাপশন ও বানী। আশাকরছি আপনাদের অনেক ভালো লাগবে। আর ভালো লাগলে আপনার শেয়ার করুন আপনার কাছের মানুষের সাথে। আমাদের সাথে থাকার জন্য আন্তরিক ভাবে ধন্যবাদ আপনাকে। চলুন শুরু করি।

সূর্যমুখী ফুল নিয়ে ক্যাপশন

সূর্যমুখী ফুল নিয়ে স্ট্যাটাস

শৈশবকাল থেকেই প্রায় প্রতিটি মানুষ সূর্যমুখী ফুলের অপরিচ্ছন্ন সৌন্দর্যে ছুঁয়ে গেছে।

 

আজ সকালে মেঘলা আকাশ, সূর্য বুঝি উঠবে না। সূর্যমুখী ফুলটি আমার, তাই বলে কি ফুটবে না?

 রোজ কষ্টে থাকলেও ওরা আবার সামলে ওঠে, ওদের জন্যই বোধহয় ২/৩ টা সূর্যমুখী বেশি ফোটে।

 

আমি সূর্যমুখী ফুলের মত দেখি তোমায় দূরে থেকে, দলগুলি মোর রেঙে ওঠে তোমার হাসির কিরণ মেখে।

 

 সূর্যমুখীকে দেখে কিছু শিখতে পারাে সময়ের সাথে চলতে, এক মুহূর্তও ছাড় পড়েনা হয়না অজুহাত বলতে।

 

সকালের সূর্যমুখী, রাতে তুমি কেন দুঃখী। তুমি যদি থাকো দুঃখী, আমি হই কিভাবে সুখী। সকালের সূর্যমুখী।

 

প্রতিটি সূর্যমুখী ফুল প্রকৃতিতে প্রস্ফুটিত সূর্যের এক একটি প্রাণ।

 

 ঘরকুনো, মুখচোরা, অন্তর্মুখী? অন্তরে ভাবনারা বারোমাসই সূর্যমুখী।

 সূর্যমুখী ঠিক সূর্যের মতোই, এর সৌন্দর্যও মানুষকে আলোকিত করে।

 

সামনে সবাই সদাহাস্য সূর্যমুখী, অথচ আঁখিকোণে চেরাপুঞ্জির মেঘ, মন জলবায়ু হলেও মুখমণ্ডলে পূর্বাভাস নিষেধ।

 

 আছে এক অকালে প্লাবিত দখিনু গঙ্গা শামুকের খােলাস প্রবাহিত যার স্রোতধারা; কল্পনার নগরীতে সে যে দিবানিশি ফলায় সূর্যমুখী । হাজারাে অনুভূতি সযত্নে লালন করে, চির-অন্তর্মুখী।

 

সূর্যমুখী ফুলটি আসলেই অনেক সুন্দর এবং এর সৌন্দর্য এবং গুরুত্ব ভাষায় বলে প্রকাশ করার মতো নয়।

 

 তার সুবিস্তৃত রাজ্যে রোজই ফোটে শত শত সূর্যমুখী, তাদের আবেগ-অনুভূতি গোপনে সিঞ্চন করে, সে স্বভাবে অন্তর্মুখী।

 

আমরা যদি সূর্যমুখী ফুলের অলৌকিক বিষয় পরিষ্কারভাবে দেখতে পেতাম তাহলে হয়ত আমাদের পুরো জীবনটাই বদলে যেত।

 

 সূর্যমুখী যেমন সূর্যের তাপকে সহ্য করে সুন্দর হয়ে ওঠে, আমাদেরও উচিৎ তেমনি কষ্টগুলোকে পার করে সফল হয়ে অঠা।

 

গােলাপ তুমি সূর্যমুখীর মতাে “হাসতে” জানাে না।। সে শুরু থেকেই হাসতে থাকে..” আর তুমি হাসলেই! তােমার আর অস্তিত্বই নেই।

 

গোলাপ কখনই সূর্যমুখী হতে পারে না এবং একটি সূর্যমুখী কখনই গোলাপ হতে পারে না। সমস্ত ফুল তাদের নিজস্ব উপায়ে সুন্দর, এবং এটি মহিলাদের মতো।

 

উপরে আপনাদের জন্য কিছু জনপ্রিয় সূর্যমুখী ফুল নিয়ে ক্যাপশন শেয়ার করলাম। সামনে অন্য কোনো বিষয়ে উক্তি শেয়ার করবো। সে পর্যন্ত ভালো থাকুন। ধন্যবাদ

কদম ফুল নিয়ে ক্যাপশন

কদম ফুল নিয়ে ক্যাপশন – প্রিয় বন্ধুরা আজকে আমরা আপনাদের জন্য শেয়ার করবো কদম ফুল নিয়ে ক্যাপশন ও বানী। আশাকরছি আপনাদের অনেক ভালো লাগবে। আর ভালো লাগলে আপনার শেয়ার করুন আপনার কাছের মানুষের সাথে। আমাদের সাথে থাকার জন্য আন্তরিক ভাবে ধন্যবাদ আপনাকে। চলুন শুরু করি।

 

কদম ফুল নিয়ে  বানী

প্রিয়, দেখা হলে আমার হাতে ধরিয়ে দিয়ো এক গুচ্ছ কদম।

 সবুজ পাতার মাঝে হলুদ রঙের ফুল, কদম, আহা! এ যেন সৃষ্টিকর্তার অপরূপ সৃষ্টি।

 

 আমি চাই, শুধু বর্ষাকালেই নয়, প্রতিটি ঋতুতেই বৃক্ষ উজার করে হাজারো কদম ফুল ফুটুক।

 

 গোলাপ নয়, শাপলা নয়, আমি চাই কদম, শুধু কদম।

 

কদমগুলোকে সব গাছেই থাকতে দাও। ছিঁড়ে ফেলো না। এতেই কদমের সৌন্দর্য অটুট থাকবে।

 

এক গুচ্ছ কদম হাতে ভিজতে চাই তোমার সাথে।

 

 

আজি ঝর ঝর মুখর বাদল দিনে, কদমের সুরভে মোহিত আপন মন। ডুবে আছি তার সুঘ্রাণে।

 

 এলো বরষা, প্রকৃতি পেলো প্রাণ, আর উপহার হিসেবে দিয়ে গেলো এক গুচ্ছ কদম।

এক গুচ্ছ কদম হাতে দাঁড়ানো তুমি আমার বড্ড প্রিয়।

 

কদমের বৃষ্টিতে ভিজতে চাই তুমি-আমি, মোরা দু’জন।

 

কদম বড়ই অপূর্ব সৃষ্টি, দেখলেই যেন চোখ জুড়িয়ে যায়!

 

 ওহে কদম খেকো, তুমি কখনো আমার হবে নাকো!

 

 কদমের এক যাদুকরী শক্তি আছে যা দ্বারা সে তার নিজের শত্রুদেরও কাছে টেনে নিতে পারে।

 

 বৃষ্টিস্নাত রাতে কদম হাতে দাঁড়িয়ে তোমারই অপেক্ষায় আমি! কখন আসবে তুমি?

 

আমাকে পেতে চাও? তাহলে তোমায় কদমকে ভালোবাসতে হবে। যে কদমকে ভালোবাসে না, সে কখনো আমায় পাবে না।

 

কদম ফুল নিয়ে স্ট্যাটাস 

 

 কার এতবড় সাধ্যি আছে যে, কদমকে দূরে ঠেলে দিতে পারে! যে দূরে ঠেলে দেয়, সে তো পাপী, মহাপাপী।

 

আমি আর কিচ্ছু চাই না এক গুচ্ছ কদম ছাড়া। আমার চাওয়া-পাওয়ার সকল কিছু জুড়েই শুধু কদম বিরাজমান।

 

অভিমান ভাঙানোর দারুণ উপশম- কদম।

 

কদমকে পায়ে দলো না। কারও কারও কাছে তা স্বর্গ থেকে কম কিছু নয়।

 

 কদম শুকিয়ে গেলেও তা আমার কাছেই রয়ে যাবে। তোমার স্মৃতিচিহ্ন হিসেবে।

 

 যে কদম কে পছন্দ করে না, সে তো বোকা, বড্ড বোকা।

 

কদমের মানুষকে কাছে টানার যে মোহনীয় ঘ্রাণ আছে, তা আর কোনো কিছুর মধ্যেই খুঁজে পাবে না।

 

ওগো আমার কদম রাণী! চলো কদমের প্রাসাদ গড়ি। আমাদের সে প্রাসাদ কদমের ছোঁয়ায় পবিত্র হয়ে উঠবে।

 

তুমি যখন আসবে, কদম হাতেই এসো প্রিয়!

 

আমি কদম দিয়েই জানাবো তোমায় “ভালোবাসি”। তাহলেই তুমি আর আমাকে ফেরাতে পারবে না। জানি, কদম যে তোমার বড় আদরের জিনিস।

 

মাঝে মাঝে ইচ্ছে করে কদম ফুল হয়ে যেতে, মন বলে, কদম ফুল হয়ে গেলে তোমার ভালোবাসা টা বোধহয় পাবো।

 

 ওগো আমার রাণী! তোমায় কদমে কদমে ভরিয়ে দিলে তুমি কি রাগ করবে? কদম যে আমার সবচেয়ে পছন্দের ফুল!

 

কদম ফুল নিয়ে উক্তি

 

 আমি চাই, একদিন কদম বৃষ্টি হোক। সেই বৃষ্টিতে সমস্ত দুঃখ-কষ্ট, জরাজীর্ণতা ধুয়ে-মুছে সাফ হয়ে যাক।

 

চলো, কদমের প্রাসাদে আমাদের অচেনা শহর গড়ি। সেই শহরে থাকবে শুধু তুমি, আমি আর কদম।

 

 তোমার শাড়িতে এঁকে দেব কদম ফুল। সেই শাড়ি পরেই তোমার-আমার প্রেমের সূচনা হবে।

 

আমি খুঁজে ফিরি একরাশ কদম ফুলের স্নেহমাখা আদর। তুমি কি তা দেবে, প্রিয়?

 

তোমাকে বারাবার দেখতে চাই, খোপায় কদম গোঁজানো তোমাকে, হ্যাঁ তোমাকেই।

 

কদম নিয়ে দাঁড়িয়ে এই আমি যদি তোমার কাছে শত আবদার করি; তবে আমাকে কি ফেরাতে পারবে তুমি?

কদমের পাপড়ি দিয়ে ভরিয়ে দেব তোমার চুলের কালো রাশ। তারপর সেই চুলে হাত বোলাবো পরম স্নেহে।

 

কদম ফুলের পিকচার

কদম ফুলের পিকচার

কদম ফুলের ছবি

কদম ফুল

কদম ফুল ছবি

কদম ফুল গাছের ছবি

কদম ফুল গাছ

কদম ফুল pic

 

উপরে আপনাদের জন্য কিছু জনপ্রিয় কদম ফুল নিয়ে ক্যাপশন শেয়ার করলাম। সামনে অন্য কোনো বিষয়ে উক্তি শেয়ার করবো। সে পর্যন্ত ভালো থাকুন। ধন্যবাদ

শাপলা ফুল নিয়ে ক্যাপশন

শাপলা ফুল নিয়ে ক্যাপশন– প্রিয় বন্ধুরা আজকে আমরা আপনাদের জন্য শেয়ার করবো শাপলা ফুল নিয়ে ক্যাপশন ও বানী। আশাকরছি আপনাদের অনেক ভালো লাগবে। আর ভালো লাগলে আপনার শেয়ার করুন আপনার কাছের মানুষের সাথে। আমাদের সাথে থাকার জন্য আন্তরিক ভাবে ধন্যবাদ আপনাকে। চলুন শুরু করি।

 

শাপলা ফুল নিয়ে বানী

বিলের ভেতর শাপলা ফোটে
অনেক সুন্দর ফুল
খোকা-খুকু শাপলা পেলে
বানায় মালা, দুল।

 

শাপলা হাসে খুব সকালে
সূর্য হাসার আগে
কাকডাকা সে ভোরবেলাতে
বিলটা ভালো লাগে।

 

বৃষ্টি এলে বিলের পানিতে
শাপলা দেয় যে দোল
বেল পানিতে শাপলা পেকে
শালুক হয় যে গোল!

 

 সকালবেলা শাপলা শালুক
ভেজে ভেজে তাজা
শালুক খেতে ভালো লাগে
শাপলা অনেক মজা!

 

শরৎ সকাল হলুদ রোদ, তোর জন্য শিশির ভেজা ঘাস
বিলের জলে পাপরি মেলা, শাপলা তুই আর কি চাস?

 

 বিলের জলে শাপলা শালুক, ভাসছে হাঁসের দল
শাপলা নিয়ে করছে খেলা, খুঁজছে শালুক ফল।

 

নাওয়ের উপর একটি নারী, খোপায় শাপলা ফুল
ঠোঁটের কোণে রাঙ্গা হাঁসি, ঝিলিক দেয় কানের দুল।

 

 বিলে ঝিলে পুকুর ডোবায়
শাপলা ফোটে নদী-নালায়
সুগন্ধ নেই সুলভ এ ফুল
প্রাণটা সবার করে আকুল।

 

 পল্লী শিশু শাপলা তোলে
খেলে হরেক মনটা খুলে।
শালুক নামে কেউ বা চিনি
কেউবা তুলি কেউ বা কিনি।

 

নানান রকম আয়োজনে
মঞ্চ সাজাই আপন মনে
শাপলা ফুলের শোভা কেবল
চেয়ে দেখে মানব সকল।

 

জল ছুঁয়ে যায় হাতের কাকন,
ঠোঁট চেপে মৃদু মৃদু হাসে
শাপলা বিলের জলে তার
ধূসর রঙের আঁচল ভাসে।

 

ঢেউয়ের সাথে মিশে শ্যাওলা, মনের রঙে খেলে
পাশে আছে লাল শাপলা, শ্যাওলা মাখা জলে।

 

 বাংলাদেশের জাতীয় ফুল শাপলা। কিন্তু এটি কোন অট্টালিকা বাড়ির ছাদে জন্মায় না, কেউ দিনভর তার পরিচর্যা কিংবা আদর-যত্ন করে না। কিন্তু তারপরও গুণে-মানে অনেক পরিচর্যায় জন্ম নেওয়া ফুলগুলোর থেকে কোন অংশে কম নয় শাপলা। কোন মানুষকে বিবেচনা করার ক্ষেত্রেও তার জন্ম পরিচয় কিংবা চারপাশের অবস্থার চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো তার কর্ম।

 

স্বপ্ন আমার আকাশ ছোঁয়ার
উড়তে চাই ডানা মেলে,
তোমায় নিয়ে হারিয়ে যাবো
লাল শাপলার সেই বিলে!

 

পরিয়ে দেবো তোমার গলে
শাপলা ফুলের মালা,
তোমায় পেয়ে শাপলা ফুল
করছে নতুন খেলা!

 

 

 আমি সদ্য ফোটা এক সাদা শাপলা
তোমাদের অতি পরিচিত একজন।
যাকে তোমরা তোমাদের জাতীয় ফুল বলে সম্মোধন করেছো!
আমি সেই শাপলা।

 

আমি সেই শাপলা যাকে,
তোমরা তোমাদের বন্দী শিখায়
বন্দী করতে পারোনি।

 

উপরে আপনাদের জন্য কিছু জনপ্রিয় শাপলা ফুল নিয়ে ক্যাপশন শেয়ার করলাম। সামনে অন্য কোনো বিষয়ে উক্তি শেয়ার করবো। সে পর্যন্ত ভালো থাকুন। ধন্যবাদ

সরিষা ফুল নিয়ে ক্যাপশন

সরিষা ফুল নিয়ে ক্যাপশন – প্রিয় বন্ধুরা আজকে আমরা আপনাদের জন্য শেয়ার করবো সরিষা ফুল নিয়ে ক্যাপশন ও বানী। আশাকরছি আপনাদের অনেক ভালো লাগবে। আর ভালো লাগলে আপনার শেয়ার করুন আপনার কাছের মানুষের সাথে। আমাদের সাথে থাকার জন্য আন্তরিক ভাবে ধন্যবাদ আপনাকে। চলুন শুরু করি।

 

সরিষা ফুল নিয়ে উক্তি ও বানী

 ” ঘুম হতে আজ জেগেই দেখি শিশির-ঝরা ঘাসে,
সারা রাতের স্বপন আমার মিঠেল রোদে হাসে।
আমার সাথে করতে খেলা প্রভাত হাওয়া ভাই,
সরষে ফুলের পাঁপড়ি নাড়ি ডাকছে মোরে তাই।”
— পল্লীকবি জসীমউদ্দীন

 ” সরষে ফুলে মাঠ ভরেছে ছড়িয়ে হলুদ রং
কৃষকেরা দুঃখ ভুলে গেছে সুখের গান।
মনের মত ফসল তুলে ভরবে তাদের ঘর
দুঃখ রহিবে না আর কাটবে দেনার ভার।”

 

“ভোর সকালে শীতল ছোঁয়া, শিশির ভেজা ঘাসে,
পুব আকাশে সোনার রবি, সকাল হলে হাসে।

 

ঘরের চালে কুমড়ো ফুলে, সরিষা ফুল মাঠে,
ভোর সকালে শিশু-কিশোর চাদর গায়ে পাঠে।”

 

এক সমুদ্র ভালবাসা বুকের ভিতরে
তোমার জন্য পুষে রেখেছি যতনে
কোনো এক বিকেলে অবসর পেলে
সরসে ফুলের বাগানে দেখা করে
নিয়ে যেও ভালবাসা আর ফুল।

 

আমি থাকব চিলের ডানায়
দূর থেকে দেখব তোমায়
তুমি থাকবে অনেক একা
হলদে সরষে ফুলের দুনিয়ায়।

 

হলুদ ফুল হলুদ ফুল
আমারে কি চেনো?
আমি তোমার অমরা
সরষে ফুলের ভ্রমরা।

 

সরিষা ফুলের মনমুগ্ধকর দৃশ্য দেখে জুড়িয়ে যায় সবার প্রাণ। দিগন্তজোড়া মাঠের মুক্ত বাতাস ছড়িয়ে দেয় মধুর ঘ্রাণ। কিন্তু কয়দিন পর আর সরিষা ফুল থাকবে না এ সরিষা ক্ষেতে! তখন মৌমাছিরাও উড়াল দিয়ে চলে যাবে অন্যত্র।

 

শীতের দিনে কুয়াশায় ঢাকা থাকে রাস্তাঘাট, কাস্তে হাতে কৃষক ছুটে চলে ফাঁকা মাঠের দিকে। খেজুর গুড়ের পিঠা পায়েস এর মৌ মৌ করা ঘ্রাণ আর সরষে ফুলের মন জুড়ানো দৃশ্য শীতকে করে তোলে অনন্য।

 

সরিষা ফুলের মত এত বেশি ফুল একসাথে সাধারণত দেখা যায় না। মাঠের পর মাঠ সরিষা ফুলে ছেয়ে থাকে। কুয়াশা ঢাকা সকালে ঘুম ভেঙেই আঙিনায় হলুদ কার্পেটের মত এ দৃশ্য দেখতে কার না ভালো লাগে।

 

সরিষা ফুল সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য চাষ করা হয় না। সরিষা একটি ফসলি উদ্ভিদ যা চাষ হয় শীতকালে। সরিষার তেল পাওয়ার উদ্দেশ্যেই মূলত সরিষা চাষ হয়। কিন্তু গ্রাম বাংলার সৌন্দর্য বর্ধনে সরিষা ফুল সরিষা ক্ষেত যুগ যুগ ধরে ঐতিহ্যবাহী ভূমিকা পালন করে চলেছে।

 

সরিষা ফুলে যখন ছেয়ে যায় সরষে ক্ষেত, দলে দলে মৌমাছিরা করে বেড়ায় মধুর আশায়। কিন্তু যখন আর সরিষা ফুল থাকে না, মৌমাছিদের ও আর দেখা পাওয়া যায় না! জীবনটা আসলে এমনই!

 

সরষে ফুল নিয়ে ক্যাপশন স্ট্যাটাস পোস্ট নিয়ে আমাদের এই লেখা । আমাদের এই লিখা গুলো পড়ে অনেক মজা পাবেন আশাকরি । আমরা সব সময় আপনাদের জন্য ভালো ভালো লেখা দেয়ার চেষ্টা করি । তাই এখানেও কিছু দারুণ দারুণ লেখা কবিতা ছন্দ পোস্ট করা হলো । আসুন তাহলে দেখে নেয়া যাক ।

 

সরষে ফুল নিয়ে  ছন্দ

 

ভোর বেলায় মৃদু সফেদ কুয়াশা মাড়িয়ে
হাঁটি হাঁটি পা পা করে এগিয়ে যাব
সরষে ফুলের পাশে,
যেখানটায় আমাদের শৈশব কেটেছে
আনন্দে উল্লাসে।

 

সরষে ফুলের সুবাসে
মেতেছে মৌ, হেসেছে বৌ
হিমশীতল হাওয়ায় ভাসিয়ে
মৌমাছি ফুলের মধু খোঁজে আসে।

হলুদের সাথে পাল্লা দিয়ে
ফুটেছে সরষে ফুল
আমার জীবনও এইরকমই
হারিয়ে ফেলেছে কূল।

 

এসো তোমারে রাঙিয়ে দেব ভালোবাসায়
কানে পড়িয়ে দেব প্রকৃতির দূল
চোখে থাকবে হলুদাভ দেয়াল
সরষে ফুল সরষে ফুল।

 

সারা রাতের আকাশ যখন মিঠে রোদে হাসে
সরসে ফুলের সুবাস তখন ভীষণ করে আসে
এই প্রাণ এই ঘ্রাণ, আপন বড্ড লাগে
সরষে ফুলের সৌন্দর্য ঝরে কুসুম বাগে।

 

তোমাকে ভেবেছিলাম হলুদ সরষে
পরম যত্নে বুকে গহীনে লুকিয়েছিলাম
গহীনের নিঃশব্দ আঘাত আমাকে ভেঙ্গেছে বহু আগে
বুঝিনি আমি তুমি এক ছদ্মবেশী পার্থেনিয়াম।

 

হে সরষে ফুল
হলুদ রূপসী তুমি
আমার মনের দূল,
প্রিয় সরষে ফুল।

সরষে ফুল ছিঁড়ো না, এ ভুল করো না।
ফুলে ফুলে ভরে উঠুক এই উদ্যান।

 

মাঠজুরে বিন্যস্ত সরষে ফুল
দিগন্তে সুদীর্ঘ নীল আকাশ ৷
ফুলের মধু পেতে উড়ছে ভ্রমরা
তব গুঞ্জনে মোহিত কুঞ্জবন।

 

তোমার হলুদ শাড়ির আচল
যেন বিষন বিকেলে
এক মুঠো সরষে ফুল
মনের ভুলে তোমাকে চাই
ভুল করে তুমি ফুল হয়ে যাও!

 

মুহুর্মুহু বাতাস বইছে এ পথে
পথের এক হলুদ মাঠ
মাঠভর্তি সরষে ফুলে সমারোহ
আহা! আকুলিবিকুলি করে এই প্রাণ।

 

এই গান শুনে রাখো প্রান্তর
আমাকে আর ডেকো না
আমি মিশব না সরষে ফুলের ঘ্রাণে
আমি মিশব নীল নীল আসমানে

সরষে ফুলে ভর করে
মধু পানে ব্যস্ত ভ্রমর
আমার হৃদয় জানে
কতটুকু প্রেম আছে
তোমার জন্য আমার।

 

উপরে আপনাদের জন্য কিছু জনপ্রিয় সরিষা ফুল নিয়ে ক্যাপশন শেয়ার করলাম। সামনে অন্য কোনো বিষয়ে উক্তি শেয়ার করবো। সে পর্যন্ত ভালো থাকুন। ধন্যবাদ

না পাওয়ার কিছু কথা

প্রিয় বন্ধুরা আজকে আমরা আপনাদের জন্য শেয়ার করবো  না পাওয়ার কিছু কথা । আশাকরছি আপনাদের অনেক ভালো লাগবে। আর ভালো লাগলে আপনার শেয়ার করুন আপনার কাছের মানুষের সাথে। আমাদের সাথে থাকার জন্য আন্তরিক ভাবে ধন্যবাদ আপনাকে। চলুন শুরু করি।

না পাওয়ার কিছু কথা

ভালোবাসাই হোক বা অন্য যে কোন কিছু, জোর করে আদায় করার চেয়ে বরং না পাওয়াই ভালো।

 

আমি আমার না পাওয়াটা সযত্নে লুকিয়ে রাখি। কারণ ওটা আমার সবচেয়ে নরম স্হান। ওখানে কেউ আঘাত করলে সহ্য করার ক্ষমতা আমার নেই।

 

 না পাওয়া মানেই ব্যর্থতা নয়, হতে পারে সেটাই আপনার হাজারো সফলতার শুরু।

 

যে পাওয়া তোমাকে অহংকারী, অমানুষ করে তোলে সে পাওয়ার চেয়ে না পাওয়াই বরং ঢের ভালো।

 

পৃথিবীতে কোনো কিছুই ফ্রি তে পাওয়া যায় না, শুধু মায়ের ভালোবাসা ছাড়া।

 

 না পাওয়াটাই ভালোবাসার চূড়ান্ত পরিণাম, মাঝের এই প্রেম হলো শুধু অনুভূতির আস্ফালন।

 

সবসময়ই কি সব আশা পূরণ হয়? মাঝে মাঝে না পাওয়ার মাঝেও থাকে প্রাপ্তির চেয়ে বড় আনন্দ।

 

চলতে হবে এভাবেই,
হাজার লোকের ভীড়ে একা হয়ে
অনেক না পাওয়াকে সঙ্গে নিয়ে
হাজার অপূর্ণতাকে সাথে নিয়ে
অনেকটা একাকীত্বের হাত ধরে
চলতে হবে এভাবেই……
হাজারটা আলোর মাঝে
অন্ধকারকে সাথে নিয়ে।

 

প্রতারকরাই আমাদের জীবনে পথের বন্ধুরতা দেখায়। অপূর্ণতার হাসিই মানুষকে বাস্তবের মাটিতে বাঁচতে শেখায়।

 

সম্পর্কের যত না পাওয়া, সব ঝড়ে পড়ে চোখ চুঁইয়ে
আমাদের বেঁচে থাকা শুধু অভিমানের পারদ ছুঁয়ে।

 

না পাওয়াটাই ভালো, পেতে ইচ্ছে জাগে। পেয়ে গেলে ইচ্ছে মরে যায়, তার সাথে মরে সেই জিনিসের কদর। তারপর একসময় মূল্যহীন।

 

জীবন মানে অপূর্ণতার আখ্যান, না পাওয়ার বেদনা, ফিরে পাওয়ার চেষ্টা, পূর্ণতার প্রার্থনা। প্রার্থনা পূরণ হলে, জীবন পূর্ণ হলে তখন তা অতিষ্ঠ করে তোলে বিতৃষ্ণা জাগায়। তাই পেতে নেই সব।

 

তোমাকে না পাওয়াটাই ভালো হয়েছে বোধহয়। পেয়ে যাওয়ার পর যদি দেখতাম আমার বিকেলের অবশ কল্পনার সাথে তোমার এতটুকু পার্থক্য আছে, তবে কি আমি মেনে নিতে পারতাম! তার চেয়ে বরং তুমি আমার কল্পনাতেও বেশ আছো। আমার নিজের পছন্দের মতো হয়ে।

 

 তোমায় পেয়ে গেলেই হু হু করে জেগে ওঠে হারানোর বেদনা। পূর্ণিমার পর থেকেই যে চাঁদের ক্ষয় শুরু হয়। তার চেয়ে না পাওয়া ভালো। ওতে পূর্ণিমার অপেক্ষা থাকে।

 

ভুলটা শুধু আমারই ছিল,
কারণ স্বপ্নটা যে আমি একাই দেখে ছিলাম, তাই আজ না পাওয়ার বেদনাটাও শুধুই আমার।

শীতকালে গাছ পাতা পায় না, গ্রীষ্মে নদী জল পায় না, তাই বলে কি তারা মরে যায়? ঠিকই শীত পেরিয়ে বসন্ত আসে, গ্রীষ্ম পেরিয়ে আসে বর্ষা। গাছে নতুন পাতা গজায়, নদী ভরে ওঠে জলে। তাই সব না পাওয়া, সব অপূর্ণতার মানেই সমাপ্তি না। বরং তা ইঙ্গিত দেয় এক নতুন শুরুর।

 

সবকিছু সম্পূর্ণ ভাবে চাইতে নেয়। কিছু না পাওয়া থাকা ভালো। কারণ গোলাপের সম্পূর্ণ গাছটাকে চাইতে গেলে কাঁটার আঁচড়ও সহ্য করতে হবে।

 

তোর নামের অনুভূতিগুলো
থাক না জমা না পাওয়ার খাতায়
কেননা মন বোঝে কিছু প্রেমের
হয় না স্হান মিলনের পাতায়।

 

 ভালোবাসার শ্রেষ্ঠ উপহার হলো ” না পাওয়া”। ওতেই ভালোবাসার সেরা প্রকাশ হয়।

 

যদি কিছু না পাওয়া নিয়ে আপনি হতাশ হয়ে পড়েন, তখন আপনি আর কখনোই কিছু পাবেন না।

 

আপনি জীবনে যা পেয়েছেন তা নিয়ে গর্বিত হবেন না। বরং যা পান নি তাই নিয়ে চিন্তা করুন, চেষ্টা করুন। একসময় সেটাও পেয়ে যাবেন।

 

 না পাওয়ার বেদনা যার সহ্য হয়ে গেছে, সে আর পাওয়ার জন্য উতলা হয় না।

 

 জীবনে যদি কোনো না পাওয়া থাকে তবে সেটা নিয়ে দুঃখ না করে, বরং শক্তি বানিয়ে নিন। কে জানে হয়তো তার চেয়ে অনেক ভালো কিছুই পাবেন।

 

 

উপরে আপনাদের জন্য কিছু জনপ্রিয়  না পাওয়ার কিছু কথা  শেয়ার করলাম। সামনে অন্য কোনো বিষয়ে উক্তি শেয়ার করবো। সে পর্যন্ত ভালো থাকুন। ধন্যবাদ

উচিৎ কথা নিয়ে উক্তি

প্রিয় বন্ধুরা আজকে আমরা আপনাদের জন্য শেয়ার করবো উচিৎ কথা নিয়ে উক্তি ও বানী। আশাকরছি আপনাদের অনেক ভালো লাগবে। আর ভালো লাগলে আপনার শেয়ার করুন আপনার কাছের মানুষের সাথে। আমাদের সাথে থাকার জন্য আন্তরিক ভাবে ধন্যবাদ আপনাকে। চলুন শুরু করি।

উচিৎ কথা উক্তি

 

পা পিছলে পড়ে যাওয়া লজ্জার কথা নয়। বরং যথা সময়ে উঠে না দাঁড়ানােই লজ্জার ব্যাপার।

 

তর্কে জেতা বুদ্ধিমানের কাজ নয় বরং বুদ্ধিমানের কাজ হল তর্কে না জড়ানাে।

ভালােবাসার মানুষদের খুব কাছে কখনাে যেতে নেই!’
‘আবেগ লুকাতে হয়, অতি আবেগ মানুষকে সামনে এগােতে দেয় না।’

 

তুমি যতটা মূল্যবান ততটা সমালােচনার পাত্র হবে।

 

বুদ্ধির সীমা আছে কিন্তু বােকামীর কোন সীমা নেই।

 

জ্ঞানী মূর্খকে চিনতে পারে কেননা সে জ্ঞানী। পক্ষান্তরে মূর্খ জ্ঞানীকে চিনতে পারে না, কেননা সে মূখ।

 

বন্ধুত্ব একটি ছাতার ন্যায়। বৃষ্টি যতই প্রবল হয় ছাতার ততই প্রয়ােজন হয়।

 

 ভূল করা দোষের কথা নয় বরং ভূলের উপর প্রতিষ্ঠিত থাকা দোষণীয়।

 

মানুষের সাথে বন্ধুত্ব ছিন্ন করে অর্থ উপার্জন করতে যেও না। কারণ, বন্ধুত্ব স্থাপনই অর্থাপর্জনের গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম।

 

মানুষের সাথে সে রূপ আচরণ কর যেমন তারা পছন্দ করে। নিজের পছন্দ মাফিক আচরণ কর না।

 

 আহমকের সাথে তর্ক কর না। কারণ,মানুষ হয়ত দুজনের মাঝে পার্থক্য করতে ভূল করবে।

 

 তােমার স্ত্রীর রুচি বােধকে অবমূল্যায়ণ কর না। কারণ, সে তােমাকে প্রথম পছন্দ করেছে।

 

উপরে আপনাদের জন্য কিছু জনপ্রিয়  উচিৎ কথা নিয়ে উক্তি, ক্যাপশন  বাণী শেয়ার করলাম। সামনে অন্য কোনো বিষয়ে উক্তি শেয়ার করবো। সে পর্যন্ত ভালো থাকুন। ধন্যবাদ

ভাত নিয়ে উক্তি

ভাত নিয়ে উক্তি– প্রিয় বন্ধুরা আজকে আমরা আপনাদের জন্য শেয়ার করবো ভাত নিয়ে উক্তি ও বানী। আশাকরছি আপনাদের অনেক ভালো লাগবে। আর ভালো লাগলে আপনার শেয়ার করুন আপনার কাছের মানুষের সাথে। আমাদের সাথে থাকার জন্য আন্তরিক ভাবে ধন্যবাদ আপনাকে। চলুন শুরু করি।

 

ভাত নিয়ে স্ট্যাটাস

ভাত নিয়ে স্ট্যাটাস

আমরা বাঙলী তো! বাঙালি বলেই বিরিয়ানির চেয়ে নতুন চালের গরম ভাত, একটু খানি গাওয়া ঘি, আর একটু মাছ। বাঙালির কাছে এই বেহেশতি খানা!

 

দুবেলা ভাত জোটানোর জন্য মাথার ঘাম পায়ে ফেলে সারাদিন খাটতে হয় যে দেশে। সেই দেশে শিক্ষার বিস্তার ও তার মানোন্নয়ন এর চিন্তা ও বিলাসিতার সামিল কিংবা অপরাধ। তাই জাতিকে শিক্ষিত করতে হলে, আগে তাদের দুটো ভাতের ব্যবস্হা করে দিতে হবে।

 

করেছো জাতের বড়াই, মেরে খাচ্ছো আরেক জনের ভাত
ঈশ্বর কি তবে সৃষ্টি করেছেন বেঈমানী মানব জাত!

 

 ক্ষমতা দাও, অর্থ দাও, সুযোগ দাও আমারে। না! গাড়ি, বাড়ি কেনার ইচ্ছে আমার নেই। রাস্তা, ব্রিজ, কালভার্টও বানাবো না। শুধু রাস্তার পাশের উলঙ্গ শিশুদের দুটো ভাত খেতে দেবো। গরম ভাতের গন্ধ বোধহয় ওরা ভুলেই গেছে!

 

আমি বাধ্য হয়ে স্বপ্নের বিলাসিতা ভেঙে বাস্তবতার কঠিন নোংরামিতে এসে দাঁড়িয়েছি। যেখানে কুকুর মানুষ লড়াই করে, শিশু মায়ের আঁচল ধরে চিৎকার করে দু মুঠো ভাতের জন্য। জীবন কি এতোই সহজ!

 

আমার সামান্য দাবী পুড়ে যাচ্ছে পেটের প্রান্তর-
ভাত চাই- এই চাওয়া সরাসরি- ঠান্ডা বা গরম
সরু বা দারুণ মোটা রেশনের লাল চাল হ’লে
কোনো ক্ষতি নেই- মাটির শানকি ভর্তি ভাত চাইঃ
দু’বেলা দু’মুঠো পেলে ছেড়ে দেবো অন্য-সব দাবী;
(রফিক আজাদের কবিতা)

 

 দুবেলা জোটেনা ভাত অনেকের
আবার কেউ চিকেন চাউমিন খায়
মানবতা আজ হারিয়ে গেছে
অমানুষের দুনিয়ায়

 

আমি তোমাদের মাথার দিব্যি দিলাম, আমি যুদ্ধ বন্ধ করে দেবো। তোমরা শুধু বলো যে আমায় দুবেলা দুমুঠো ভাত খেতে দেবে! বন্দুক চালালে যে ভাত খেতে দেয়!

 

আমি রক্ত হানতে জানি না
ধীরে ধীরে খুলে আসে মুঠো, পরে যায় দাঁত
যাক দমে যুদ্ধের নিশানা।
শুধু বেঁচে থাক দাবি, দুবেলা দুমুঠো ভাত!

 

দু মুঠো ভাতের জন্য ডাস্টবিনে মুখ দিয়েছে মানুষ, লড়াই করেছে কুকুরের সাথে। একটুখানি ভাতের খিদে মেটাবে বলে!

 

অট্টালিকার দালানে প্রতিনিয়ত ভাত ফেলে দেয় কাজের মেয়েটা। অথচ পাশের বস্তির একটা ঘরে দু বছরের শিশুটা আজ সাত দিন হলো ভাত পায় না।

 

উপরে আপনাদের জন্য কিছু জনপ্রিয় ভাত নিয়ে উক্তি শেয়ার করলাম। সামনে অন্য কোনো বিষয়ে উক্তি শেয়ার করবো। সে পর্যন্ত ভালো থাকুন। ধন্যবাদ

মশা নিয়ে উক্তি

মশা নিয়ে উক্তি– প্রিয় বন্ধুরা আজকে আমরা আপনাদের জন্য শেয়ার করবো মশা নিয়ে উক্তি ও বানী। আশাকরছি আপনাদের অনেক ভালো লাগবে। আর ভালো লাগলে আপনার শেয়ার করুন আপনার কাছের মানুষের সাথে। আমাদের সাথে থাকার জন্য আন্তরিক ভাবে ধন্যবাদ আপনাকে। চলুন শুরু করি।

মশা নিয়ে উক্তি ও বানী

যারা মনে করে থাকেন যা তাদের দ্বারা কিছুই হবে না, তারা এতটাই ছোটো অবস্হানে আছেন যে তাদের দ্বারা কোনো অর্জন সম্ভব না, তাদেরকে আসি বলবো যে একটা রুমে একটা মশার সাথে রাত যাপন করুন। তাহলে দেখতে পাবেন ক্ষুদ্র একটা জিনিসও কতটা অবদান রাখতে পারে!
— আনিতা রডিক।

 

মিউজিককে ব্যাকগ্রাউন্ড হিসেবে শোনাটা আমার কাছে মশা মানে একটা ক্ষুদ্র পোকামাকড়ের মতো হয়ে যায়। স্টুডিওতে আমাদের বড় স্পিকার আছে, এবং আমার মনে হয় ওভাবেই গান শোনা উচিত। আমি যখন গান শুনি, আমি শুধু গানই শুনতে চাই।
— ডেভিড লিঞ্চ।

 

যদি একটি মশার আত্মা থাকে তবে এটি বেশিরভাগই খারাপ। তাই মশাকে তার দুর্দশা থেকে বাঁচাতে আমার খুব বেশি দ্বিধা নেই। আমি পিঁপড়ার প্রতি একটু বেশি শ্রদ্ধাশীল।
— ডগলাস হস্টাডায়ার।

আমি সূক্ষ্মতায় বেশি বিশ্বাস করি, যখন আপনার সামর্থ্য থাকে, যেমন আপনি যখন একটি মশা মাছি দেখেন এবং আপনি এটিকে আঘাত করতে সক্ষম হন, আপনি এটিকে কয়েকটি ছোট ধারালো শট দিয়ে আঘাত করতে সক্ষম হন… এটি একটি সুন্দর জিনিস।
— অ্যালেক্সিস আরগুয়েলো।

 

আমার উপর বিশ্বাস বাড়ছে যে মশার কামড়ে রোগ সংক্রামিত হয়… সে সর্বদা তার কামড়ের সাথে অল্প পরিমাণে তরল ইনজেকশন দেয় – যদি পরজীবীগুলি এই পদ্ধতিতে সিস্টেমে প্রবেশ করে তবে কী হবে তা ভেবে আমি শঙ্কিত।
— রোনাল্ড রোস।

 

ছোট্ট চালাক মশার দল কামড় দিয়ে পালায়
সেই কামড়ের ঠ্যালায় মোদের সারাটা গা চুলকায়!

 

মশা হল পৃথিবীর সবচেয়ে বড় গণহত্যাকারী।
— ক্যাথরিন অ্যাপেলগেট

আপনার কাছে আপাতদৃষ্টিতে মশার চেয়ে একটি হাঙরকে অনেক বেশি প্রাণঘাতী মনে হতে পারে। কিন্তু সত্যি হলো প্রতিবছর মশার কামড়ে যতজন মানুষের প্রাণ যায়, তার কাছে হাঙরের আক্রমণে প্রাণ যাওয়া মানুষের সংখ্যা অত্যন্ত নগণ্য।
— বিল গেটস্।

 

আমি নিজেকে সর্বদা একটি ঘূর্ণায়মান মশা হিসেবে কল্পনা করতে পছন্দ করে থাকি, যে কি না নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে হলেও লক্ষ্যে অবিচল থাকে।
— কেনেথ উইলিয়ামস।

 

মশা অতি ছোট
যায়না চোখে দেখা
হুল ফুটিয়ে পালিয়া যায়
মেলে ছোট্র পাখা

 

রাতে মশা, দিনে মাছি
এই নিয়ে বেশ আছি।

 

উপরে আপনাদের জন্য কিছু জনপ্রিয় মশা নিয়ে উক্তি শেয়ার করলাম। সামনে অন্য কোনো বিষয়ে উক্তি শেয়ার করবো। সে পর্যন্ত ভালো থাকুন। ধন্যবাদ

1 2 3 39