মজার কিছু কথা - বাংলা উক্তি

মজার কিছু কথা – বাংলা উক্তি

★পৃথিবীর প্রথম পাসওয়ার্ড কি ছিল কেউ জানো?

ভাবো তো…
আরেকটু ভাবো…
তুমি জানো..
মনে করার চেষ্টা করো…
পড়ছে না মনে?

\”খুল যা সিম সিম\”

★ টিচার- হোমওয়ার্ক করোনি কেন?\\\”
গজা- স্যার, লোডশেডিং ছিলো।
টিচার- তা মোমবাতি জ্বালিয়ে নিতে।
গজা- স্যার, দেশলাই ছিলো না।
টিচার- দেশলাই ছিলো না কেন?
গজা- ঠাকুরঘরে রাখা ছিলো স্যার।
টিচার- আচ্ছা, ঠাকুরঘর থেকে নিলে না কেনো?
গজা- স্নান করিনি, ঠাকুরঘরে ঢুকবো কি করে?
টিচার- ওফ! তা স্নান করতে কে বারণ করেছিলো?
গজা- জল ছিলো না স্যার।
টিচার- জল কেন ছিলো না?
গজা- পাম্পের মোটর চলছিলো না স্যার।
টিচার এবারে ধৈর্য্যের শেষ সীমায় পৌঁছে গিয়ে দাঁত কিড়মিড় করে বললেন, \”আরে উল্লুক- মোটরটা কেন চলছিলো না?\”
গজা- স্যার, আপনাকে তো প্রথমেই বললাম যে লোডশেডিং ছিলো!… ১২ঘন্টা

★ পরীক্ষক : কল্পনা করো যে তুমি ৬ তলায় আটকে আছো , আর আগুন লেগে গেছে ! তুমি কি করে পালাবে ? সান্টা : এতো খুবই সহজ ! আমার কল্পনাটা বন্ধ করে দেব !! ;-

★ পেঁয়াজের বাজার দর যা বাড়ছে তাতে পেঁয়াজ নিয়ে সিনেমা,সিরিয়াল হলে কেমন লাগতো? দেখুন তো পুরনো নাম গুলো মনে আসে কিনা…
.
পেঁয়াজ নিয়ে বলিউডে সিনেমা
.
পেঁয়াজ কি আধুরি কাহানি
এক পেহেলি পেঁয়াজ
পেঁয়াজপান্তি
জাব তাক হ্যাঁই পেঁয়াজ
পেঁয়াজি ভাইজান
পেঁয়াজি এক্সপ্রেস
পেঁয়াজ ইজ ব্যাক
পেঁয়াজি মাস্তি
পেঁয়াজি শর্মা কি দুলহানিয়া
পেঁয়াজওয়ালা
হামারি পেঁয়াজ আপকে পাশ হ্যাঁয়
হাম পেঁয়াজ দে চুকে সানাম
পেঁয়াজি ভাইরাস
ওয়ান্স আপন এ টাইম পেঁয়াজ ইন কোলকাতা
পেঁয়াজ কলি- PK
কাটা পেঁয়াজ নিকলা আসু
পেঁয়াজি MMS
পেঁয়াজ কি সাইড এফেক্ট
পেঁয়াজ ডোনার
পেঁয়াজ না মিলেগি দোবারা
************************************
পেঁয়াজ নিয়ে টলিউডে সিনেমা
.
চিরদিনই পেঁয়াজ যে আমার
C/O পেঁয়াজ
পেঁয়াজের বাক্স
গ্রো আপ পেঁয়াজ
পেঁয়াজ সোসাইটি
জানি পেঁয়াজি হবে
সেদিন পেঁয়াজি হয়েছিল
একলা পেঁয়াজ
পেঁয়াজের কাহিনী
বেশ করেছি পেঁয়াজ খেয়েছি
পেঁয়াজগিরি
পেঁয়াজ হলেও সত্যি
বুনো পেঁয়াজ
আমি শুধু চেয়েছি পেঁয়াজ
অভিশপ্ত পেঁয়াজ
পেঁয়াজের পাহার
আশ্চর্য পেঁয়াজ
*************************************
পেঁয়াজ নিয়ে জি বাংলা সিরিয়ালঃ-
.
পেঁয়াজিনুরাগে
পেয়াজ্জোটক
পেঁয়াজাগোরি
পেঁয়াজ কিনে যাই
পেঁয়াজাগমন
*************************************
পেঁয়াজ নিয়ে স্টার জলসা সিরিয়ালঃ-
.
পেঁয়াজ পেঁয়াজিতে মিলে
পেঁয়াজ আসবে বলে
পেঁয়াজ নিয়ে কাছাকাছি
পেঁয়াজ বরণ
পেঁয়াজি কুটুম
পেঁয়াজের খোসা তুই
পেঁয়াজ মালা
ঠিক যেন পেঁয়াজ স্টোরি

★ পটলা টেলিফোনে বিয়ে করানোর ব্যুরো খুলেছে ।
প্রচার করছে এভাবে – পাত্র/পাত্রী দেখার জন্য এক ১ টিপুন।
Engagement এর করার জন্য ২ টিপুন।
আর, বিয়ে করার জন্য ৩ টিপুন।
তখন একজন লোক বলল – \” ভাই আমি দ্বিতীয় বিয়ে করার জন্য কি টিপবো ??? \”
.
.
.
.
পটলা – \” দ্বিতীয় বিয়ে করার জন্য প্রথম স্ত্রীর গলা টিপুন।

★ প্রেমিকঃ হুম, সেটা হল এমন একটা জিনিষ যেটা দেখতে নারিকেলের মত গোল ও সাদা। তার ভিতর আরো দুইটা বৃত্ত আছে, বৃত্ত এর উপর ডট।
প্রেমিকাঃ শয়তান! কি বলতে চাস? প্রেমিকঃ সেটা হল তোর চোখ।

★ পটলা একদিন পথে টাকা ভর্তি একটি মানিব্যাগ পেলো। তো সে রেডিও মির্চিতে ফোন করলো.
পটলা:- হ্যালো এটা কী রেডিও মির্চি…?
আর.জে:- হ্যাঁ বলুন..
পটলা :- আমি একটা টাকা ভর্তি মানিব্যাগ পেয়েছি।
আর.জে:- তো আপনি রেডিওতে ফোন কেন করেছেন?মানিব্যাগ থানায় জমা দিন.
পটলা:- না না, আমি তো যার মানিব্যাগটা হারিয়ে গেছে..তার জন্য একটি Sad Song এর রিকুয়েস্ট করতে চাইছিলাম।

★ প্রেমিকা : বিযের পর তোমার দুঃখ ভাগ করে নেব।
প্রেমিক : কিন্ত; আমার তো কোন দুঃখ নেই।
প্রেমিকা : আমি তো বিয়ের পরের কথা বলছি।

★ পত্নী স্বামীকে বললো, দেখ, ভগবান শিব পার্বতী\’র ছবিটা… শিবের হাতে ত্রিশূল আছে… বিষ্ণু লক্ষ্মী \’ র ছবিতেও বিষ্ণুর হাতে চক্র আছে । আর রাম-সীতা\’র ছবিতেও শ্রীরাম এর হাতে তির ধনুক আছে । শুধু মাত্র রাধিকা- শ্রীকৃষ্ণ ছবিতে শ্রীকৃষ্ণ বাঁশি বাজাচ্ছেন । এমনটা কেন ?…… স্বামী- তুমি এতো ছোটো একটা ব্যাপার বুঝলে না ? … সব দেবতার নিজের নিজের পত্নী\’র সাথে আছেন, তাই নিজের আত্মরক্ষার জন্য হাতিয়ার সঙ্গে রেখেছেন । একমাত্র শ্রীকৃষ্ণ ওনার Girlfriend এর সাথে আছেন, তাই মনের সুখে বাঁশি বাজাচ্ছেন ।

আরো পড়ুন  দর্শন নিয়ে উক্তি

★ পূজোর চাঁদা কাটতে গেছি ,
.
পাড়ার হুব্বা কাকুর বাড়ি !
.
– কাকু ৫০০০ টাকা লিখলাম
grin emoticon

~ কি ? ইয়ার্কি মারা পেয়েছিস ? বাপের বয়সী লোকের সাথে ফাজলামি ?
– যাহ কি যে বলেন
grin emoticon
! আপনি রাজা মানুষ , ৫০০০ টাকা তো কিছুই না ,
~ফাজলামো বন্ধ কর, গতবার ৩০ ছিল , এবার ৫০ লেখ
-না কাকু , ৫০০০ দিতেই হবে , রাজা -মহারাজার কাছে এসব কোনো ব্যাপারই না
~ কি তখন থেকে , রাজা – মহারাজা বলছিস !! কে বলেছে আমি রাজা ?
.
– আপনার মেয়ে, সে ই তো ফেসবুকে নাম রেখেছে ” Princess Priya”,
তাহলে হিসেব মতো আপনি তো রাজা ই হলেন !
নাকি এখানেও Case গড়বড় আছে ?

★ দুই বিবাহিত বন্ধু বিল্টু আর দুবলোর মধ্যে
কথা হচ্ছে –
বিল্টু: আচ্ছা দুবলো! বল তো সিনেমার
জীবন আর বাস্তব জীবনের মধ্যে পার্থক্য
কী?
দুবলো: এইটা বুঝলি না! সিনেমায় অনেক
ঝক্কিঝামেলা পেরোনোর পর বিয়ে
করতে হয়। আর বাস্তব জীবনে বিয়ের পর
অনেক ঝক্কিঝামেলা শুরু হয়!

★ দুই লোক মারা যাওয়ার পর কবরে বসে গল্প করছে…… – – ১ম লোকঃ ভাই আপনি মরলেন কেমনে??
২য় লোকঃ ধিরে ধিরে ঠান্ডায় জইমা!!
১ম লোকঃ কি…… কন…… ভাই!!
২য় লোকঃ মানে ফ্রিজের মধ্যে আটকাইয়া গেছিলাম!! সে এক বিরাট ইতিহাস পরে শুইনেন আগে কন আপনি মরলেন কেমনে??
১ম লোকঃ আর বইলেন না ভাই. আমি আত্মহত্যা করছি!!
২য় লোকঃ কেন ভাই?? কী এমন দুঃখ আপনার?? – ১ম লোকঃ আমার বউ এর উপর. আমি সন্দেহ করছিলাম এই জন্যে আত্মহত্যা করছি
২য় লোকঃ কী এমন সন্দেহ করছিলেন যার জন্যআত্মহত্যাই করা লাগলো??
১ম লোকঃ আমি মনে করছিলাম আমার বউ পরকীয়া করে!! একদিন বাসায় তাড়াতাড়ি গেছি হাতেনাতে ধরব বইলা।যাইয়া বুঝলাম ঘরে কেউ আছে কিন্তু সারা বাড়ি খুইজাও কাউরে পাইলাম না। মনে মনে খুব লজ্জা পাইলাম!! ছিঃ ছিঃ আমি আমার বউরে এত বড় সন্দেহ করছি!! তাই মনের দুঃক্ষে আত্মহত্যা করছি।
২য় লোকঃ ওরে শালার পুত…… সেইডা তুই আছিলি!! তাইলে তোর জন্যেই আমি আইজ. কবরে…..!! ফ্রিজের দরজাটা খুললে তো আজ তুই আমি দুইজনেই বেঁচে থাকতাম!

★ পৃথিবীর সবছেয়ে ছোট লাভ ষ্টোরিঃ.ছেলেটি মেয়েটিকে বলল : আই লাভ ইউ!তারপর ঠাস করে একটা শব্দ হলো।গল্প শেষ.
পৃথিবীর সবছেয়ে ট্রাডেজিক লাভস্টোরিঃ.ভার্সিটির সবচেয়ে সুন্দরী মেয়েটি ছেলেটিকে বলল : আই লাভ ইউ।ছেলেটি আনন্দে আত্মহারা হার্ট এটাক করে মারা গেল!!.ললনারা এভাবেও মারে, ওভাবেওমারে।ওহে ললনারা আপনারাই কন??এত ভাবে মারলে রোমিও’রাযাইবো কই..??

★ প্রচণ্ড অলস এক লোক বড়শিতে
মাছ তুলে বসে আছে।
পাশ দিয়ে একজনকে যেতে দেখে
কোমল স্বরে বললেন,
ভাই মাছটা একটু খুলে দেবেন?
একটু বিরক্ত হয়েও মাছটা খুলে দিলেন লোকটি।
তারপর বললেন,
“এত অলস আপনি!
এক কাজ করেন,
একটা বিয়ে করেন।
ছেলেপেলে হলে আপনাকে কাজে সাহায্য করতে পারবে।”
উত্তর এলোঃ ভাই, আপনার জানাশোনা কোনো গর্ভবতী মেয়ে আছে?

★ প্রেমিকাঃ আমি তোমার জন্য সব ছাড়তে রাজি আছি।
প্রেমিকঃ সত্যি?
প্রেমিকাঃ হ্যাঁ।
প্রেমিকঃ তোমার বাবা-মাকেও?
প্রেমিকাঃ হ্যাঁ।
প্রেমিকঃ তোমার সমস্ত আত্মীয়-স্বজন, বিষয়-সম্পত্তি?
প্রেমিকাঃ হ্যাঁ। প্রেমিকঃ স্টার প্লাস?
প্রেমিকাঃ মুখ সামলে কথা বল!

আরো পড়ুন  বিচ্ছেদ নিয়ে উক্তি

★ প্রেমিকা তার প্রেমিককে রাগানোর জন্যে বলল,”দেখো ওই ছেলেটাকে,আমাকে দেখে হাসছে…”
প্রেমিক হেসে বলল,”এটা তো কিছুই না রে পাগলি…প্রথমবার যখন আমি তোকে দেখেছিলাম,তিনদিন ধরে হাসি থামাতে পারি নি..”

★ প্রিয় স্বরস্বতী ,

বিদ্যা দেবী স্বরস্বতী
লিখছি তোমায় চিঠি ।
hs তো এসে গেল
কয়েকটা দিন আর বাকি ।

star টা আমায় পাইয়ে দাও
দেবনা আর ফাঁকি ।
পূজবো তোমায় ভালো করে
এবার তবে রাখি ।

★ পৃথিবীর সবছেয়ে ছোট লাভ ষ্টোরিঃ.ছেলেটি মেয়েটিকে বলল : আই লাভ ইউ!তারপর ঠাস করে একটা শব্দ হলো।গল্প শেষ.
পৃথিবীর সবছেয়ে ট্রাডেজিক লাভস্টোরিঃ.ভার্সিটির সবচেয়ে সুন্দরীমেয়েটি ছেলেটিকে বলল : আই লাভ ইউ।ছেলেটি আনন্দে আত্মহারা হার্ট এটাক করে মারা গেল!!.
ললনারা এভাবেও মারে, ওভাবেও মারে।
ওহে ললনারা আপনারাই কন??
এত ভাবে মারলে রোমিও রা যাইবো কই..??

★ প্রেমিকঃ আমাদের বিয়ের ব্যাপারে তোমার বাবার সাথে কখন কথা বললে ভালো হবে?

প্রেমিকাঃ যখন বাবার পায়ে জুতো থাকবে না।

★ প্র : একজন ঘটি রেগে গেলে, বাঙালরা তাকে কি বলবে?
উ : ঘটিগরম!

★ প্রেম করা যদি পড়ালেখা করার মত বাধ্যতামূলক হতো। তাহলে কি হতো? তার কিছু বর্ণনা নিচে দেওয়া হল… মায়ের ডায়লগঃ আজকে সারাদিন একটা মেয়েও পটাসনি! আজ আসুক তোর বাবা ! বাবার ডায়লগঃ হারামজাদা, তোকে খাইয়ে-পরিয়ে কি লাভ? দশটা মেয়ের মধ্যে সাতটার কাছ থেকে ছেঁকা খেয়ে বাড়ি ফিরেছো! স্কুলের টিচারের ডায়লগঃ কাল সবাই তিনটে নতুন মেয়ে ফিটিং করে নিয়ে আসবে! প্রাইভেট টিচারের ডায়লগঃ কাল সারারাত চুমকির সাথে ফোনে গেঁজাতে বলেছিলাম গেঁজিয়েছো? — হ্যাঁ স্যার! — দেখি, কল- ডিউরেশন বের করো! — ইয়ে মানে….. — বুঝছি, গ্যাজাও নাই। একটা দিনও বাড়ির কাজ করোনা! ডাকো তোমার মাকে ! হেডমাস্টারঃ তোমরা সবাই মন দিয়ে লাইন মারবে কোন অসুবিধা হলে আমায় জানাবে। সবশেষে, ছোটো বাচ্চরা : মা, আজ আমি প্রেম করতে যাব না। মা : হারামজাদা আজকে তোর একদিন কি আমার একদিন। প্রত্যেক দিন বলবে প্রেম করতে যাব না, প্রেম না করলে খাবি কী?

 

★ প্রেমিকঃতোমার বাবার কাছে আমাদের বিয়ের প্রস্তাব রেখেছো?
প্রেমিকাঃহ্যাঁ।
প্রেমিকঃতোমার বাবা কি বললেন?
প্রেমিকাঃতিনি জানতে চাইলেন, তোমার ব্যাঙ্কে কত টাকা আছে।
প্রেমিকঃকি বললে?
প্রেমিকাঃযা সত্যি তাই বললাম,দুলাখ।
প্রেমিকঃতোমার বাবা কি বললেন?
প্রেমিকাঃতিনি টাকাটা ধার চাইলেন..

★ পরীক্ষায় পির ফেল..কিন্তু উত্তর সব ঠিক..
প্র: নেপোলিয়ন কোন যুদ্ধের পর মারা গেছিলেন?
উ: জীবনের শেষ যুদ্ধের পর!

প্র: ইন্ডিয়ার স্বাধীনতা চুক্তি কোথায় স্বাক্ষরিত হয়েছিল?
উ: চুক্তিপত্রের নিচের দিকে!

প্র: আজকাল বিবাহ-বিচেদ্গুলোর পেছনে প্রধান কারণ কি?
উ: বিবাহ!

প্র: ব্রিটিশরা ব্রেকফাস্টের সময় কি কি খায় না?
উ: লাঞ্চ ও ডিনার!

প্র: একটি নিঁখুত অর্ধেক আপেল দেখতে কিসের মতন?
উ: অপেলটির বাকি অর্ধেকের মতন!

প্র: কোনো মানুষ কি পদ্ধতিতে সাতটি দিন না ঘুমিয়ে কাটাতে পারে?
উ: সাত রাত ঘুমিয়ে!

★ পৃথিবীর সবচেয়ে \”আজাইরা\” কিছু
প্রশ্ন এবং তাদের উপযুক্ত উত্তরঃ
১. মাঝরাতে ফোন করে ঘুম
ভাঙ্গিয়েঃ \”দোস্ত ঘুমাইছিলি??\”
উত্তরঃ \”না না,আমি আফ্রিকার
বানর প্রজাতির বিবাহ বন্ধন
প্রক্রিয়া নিয়ে ভাবতেছিলাম!!\”
২.সিনেমা হলে দেখা হলেঃ
\”আরে দোস্ত এখানে কি করিস??\”
উত্তরঃ \”আমি সিনেমা হলে
পপকর্ণ বেচার কাজ নিছি!! পপকর্ণ
কিনবি একটা, প্লিজ??\”
৩. বাসে পা মাড়িয়ে দিয়েঃ
\”সরি ভাই!! ব্যাথা পান
নাই তো??\”
উত্তরঃ \”না ভাই,ব্যথা পাব কেন??\”
আমার পায়ে লোহা বাধা আছে!!
আর একবার পাড়া দেন প্লীজ!!\”
৪. ট্ণ্ট্ ফোনে কল করার পরঃ
\”দোস্ত,তুই কোথায়??\”
উত্তরঃ \”আমি মার্কেটে দোস্ত!!
ট্ণ্ট্ ফোনটা আমার গলায় ঝুলিয়ে
রাখছি!!\”
৫. চুল ছোট দেখলেঃ \”কিরে
চুলকাটিয়েছিস নাকি??\”
উত্তরঃ \”না না চুল কাটাই নাই!!
এখন শীতকাল তো, গাছের পাতা
ঝরার সাথে সাথে আমার চুল
নিজে নিজে ছোট হয়ে গেছে!!\”

আরো পড়ুন  মানসিক শক্তি নিয়ে উক্তি

★ প্রেমিকা: তুমি আমায় ভালোবাসো?
প্রেমিক: নিশ্চই..
প্রেমিকা: পরীক্ষা দিতে পারবে?
প্রেমিক: নিশ্চই..
প্রেমিকা:তোমার পকেট থেকে যে ২০ টাকা টা উকি মারছে ওটা আমায় দিতে পারবে?
জরুরি টাকাতে প্রেমিকার নজর পড়ছে দেখে তাড়াতাড়ি সেটা ঢেকে নিয়ে বলল..
….কেন পারব না কিন্তু পরীক্ষার তারিখ টা একটু পেছোনো যায় না?

★ নদীর পারে আমি একা.., নদী চলে আঁকা বাঁকা… আমি বন্ব্দু বড়ো একা…, এখন ভাবছি তোমার কথা… তোমার সাথে আমার কিগো.., কখনো হবেনা দেখা ?

★ দুষ্ট বিড়াল খবর দিল,
ডিম দিয়েছে হাতি,
ডিম থেকে বেরিয়ে এল রাম ছাগলের নাতি,
ছাগলটা দেখতে কার মত?
এই এস এম এস টা যে পড়ছে তার মত ॥

★ নদীর পাড়ে গাছের নিচে বসে কাঠুরে কাঁদছে। একে আপনারা চেনেন। বহুদিন আগে এর কুড়ুল পড়ে গেছিল নদীতে। তার কান্নায় জলদেবী উঠেছিলেন। একটা সোনার কুড়ুল দেখিয়ে বলেছিলেন–এটা কি তোমার? কাঠুরে বলেছিল–না। রুপোর কুড়ুল দেখেও সে না বলেছিল। জলদেবী তার সততায় মুগ্ধ হয়ে তাকে লোহার কুড়ুলের সাথে সোনা ও রুপোর কুড়ুল দুটো উপহার দিয়েছিলেন। আজ সেই কাঠুরে আবার কাঁদছে। কাঠুরের কান্নার কারণ তার বউ। সে কিছুতেই বিশ্বাস করে না যে ,জলদেবী তাকে ওইসব দিয়েছে। সরজমিনে তদন্ত করতে এসে বউ গাছে উঠেছিল।কুড়ুলের চোট মেরেছিল গাছে। কুড়ুলটা ছিটকে পড়ল মাটিতে আর বউ পড়ল নদীর জলে। নদীর জলে তলিয়ে গেছে বউ। কাঠুরে কাঁদছে অঝোর নয়নে। জলদেবী উঠে এলেন । শুনলেন সব । বললেন–এখনই তোমার বউকে এনে দিচ্ছি। নদীর জল থেকে এক সুন্দরী তরুণীকে তুলে ধরলেন জলদেবী । বললেন–এটাই কি তোমার বউ ? নিয়মিত ভিডিও দেখার সুবাদে কাঠুরে তাকে চেনে। মেয়েটি সিনেমার বিখ্যাত এক নায়িকা। বলল–হ্যাঁ , দেবী ,এই-ই আমার বউ । জলদেবী বললেন–রাতারাতি এমন পরিবর্তন কেন তোমার, তোমাকে তো আমি সত্যবাদী বলেই জানি। কাঠুরে ম্লান হেসে বলল–অপরাধ নেবেন না দেবী , আমি যদি বলি ওটা আমার বউ নয় তবে আপনি আবার ডুব দেবেন ,তুলে আনবেন অন্য কোন নায়িকাকে। আমি আবার বলবো–এটাও আমার বউ নয়। তখন আপনি আমার আসল বউকে তুলবেন । শেষে সব কটাকেই আমাকে উপহার দেবেন। ভেবে দেখুন একবার , তিনটে কুড়ুল একসাথে ঘরে রাখা যায় কিন্তু তিনটে বউ–বাপ-রে বাপ! তাই আমার এই মিথ্যাচার!

★ নিউ ইয়ার উপলক্ষে আমি একটি বিলাশবহুল হোটেলে এক পার্টির আয়োজন করেছি। উক্ত পার্টিতে আপনাদের সকলের উপস্থিতি কামনা করি।
হোটেলের ঠিকানা:
ஐஏழயர,
ஒஒளভளவவபயோஎடய, பமவளலோபயத
க்ஷஹஒப.
ளப, ஸ்ரீக்ஷணோய.

কোনো অজুহাত শুনবো না, সকলকে আসতেই হবে কিন্তু।
সকলকে ব্যক্তিগতভাবে নিমন্ত্রন করা সম্ভব নয়, তাই সমস মাধ্যমে নিমন্ত্রনের ত্রুটি মার্জনীয়।

★ নিচে তুমাকে একটা সুন্দরী মেযের নম্বার দিচ্ছি। কথা বল আশা করি ভাল লাগবে।

একটু নিচে?


আর একটু নিচে নাম্!


-আরো একটু নিচে নাম!


সামান্য একটা মেযের নাম্বারের কারনে এত নিচে নামতে পারলে?

★ দাঁতের ডাক্তারের কাছে এক মেয়ে এসে বলল-

মেয়ে : ডাক্তার সাহেব, আপনি দাঁত তুলতে পারেন?

ডাক্তার : হ্যাঁ, পারি।

মেয়ে : তাহলে যে আমার সঙ্গে আমাদের বাড়ি যেতে হবে। আমার দিদার দাঁত তুলতে হবে।

ডাক্তার : তা যাওয়া যাবে। ফি কিন্তু ডাবল দিতে হবে।

মেয়ে : সেটা সমস্যা না, চলুন আমার সঙ্গে।

ডাক্তার মেয়েটার বাড়ি গেল। সেখানে গিয়ে মেয়েটার দিদাকে বলল-

ডাক্তার : দেখি, আপনার কোন দাঁত তুলতে হবে?

দিদা : আমার সঙ্গে একটু কষ্ট করে পুকুরপাড়ে চলুন।

পুকুরপাড়ে গিয়ে দিদা বললেন, আজ স্নান করতে গিয়ে পুকুরে দাঁত পড়ে গেছে। আপনি কষ্ট করে তুলে দেন!

Bangla Quote